প্রকাশিত : ২২ অক্টোবর, ২০১৯ ২১:৪৮

ভোলায় সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ ও হেফাজতের বিক্ষোভ কর্মসূচী স্থগিত

শহর জুড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন
ষ্টাফ রিপোর্টার
ভোলায় সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ ও হেফাজতের বিক্ষোভ কর্মসূচী স্থগিত

মহান আল্লাহ ও রসূল স:কে নিয়ে কটুক্তি করার প্রতিবাদে ভোলার বোরহানউদ্দিনের পুলিশ-জনতার সংঘর্ষে ৪জন নিহত হয়। এসময় আহত হয় দুই শতাধিক। এ ঘটনার প্রতিবাদে ভোলায় সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ সংবাদ সম্মেলন করে ৬ দফা দাবীতে ৭২ ঘন্টা আল্টিমেটাম ও ৪ দিনের কর্মসূচী ঘোষণা করেন। এই কমসূচী অনুযায়ী মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) ভোলা হাটখোলা মসজিদ সামনে কালো পতাকা বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেয় সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ নেতৃবৃন্দ। কর্মসূচী অনুযায়ী বিকালের দিকে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে হাটখোলা মসজিদের তৌহিদী জনতা আশা শুরু করলে পুলিশের বাধায় তারা ফিরে যায়। এসময় সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ নেতৃবৃন্দ বিক্ষোভ সমাবেশ স্থগিত করেন। এদিকে সারাদেশের কর্মসূচী অনুযায়ী ভোলায় সকালে হেফাজত ইসলামের বিক্ষোভ মিছিল পুলিশের মুখে করতে পারেনি বলে নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন। দুপুরের পর থেকেই শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ চেক পোস্ট বসিয়ে যানবাহন থামিয়ে যাত্রীদের তল্লাসি করে। যার ফলে সাধারণ যাত্রীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়। অপ্রিতিকর ঘটনা এড়াতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি মোতায়েন করা হয়। অপরদিকে বোরহানউদ্দিনের সংঘর্ষের ঘটনায় ৫ হাজার জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে পুলিশ মামলা দায়ের করেন। যার ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে চরম আতঙ্ক ও উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। কড়া নিরাপত্তায় শহর জুড়ে থমথমে অবস্থা।

সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ নেতা মাওলানা তরিকুল ইসলাম বলেন, বোরহান উদ্দিনের ঘটনার প্রতিবাদে আমরা ৪দিনের কর্মসূচী ঘোষণা করি। মঙ্গলবার বিকালে ভোলার হাটখোলা মসজিদের সমানে বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচী দেয়া হয়। দুপুরের পর থেকে বিভিন্ন এলাকা থেকে সাধারণ মানুষ বিক্ষোভ সমাবেশে অংশগ্রহণ করার জন্য আসতে শুরু করে। শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পুলিশ চেক পোস্ট বসিয়ে যানবাহন তল্লাসি করে মুসুল্লীদের শহরে আসতে বাঁধা দেয়। পুলিশের বাধার মুখে আমরা কর্মসূচী স্থগিত করতে বাধ্য হই। বৃহস্পতিবার মানববন্ধন ও শুক্রবার নিহতদের স্মরণে দোয়া মুনাজাতের কর্মসূচী রয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের পরবর্তী কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে। ৬ দফা দাবী না মানা পর্যন্ত এই আন্দোলন চলবে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সাধারণ যাত্রী বলেন, আমরা অটোরিকশা সহ বিভিন্ন যানবাহনে সদরে যাচ্ছি। পুলিশ যানবাহন থামিয়ে আমাদেরকে তল্লাসি করে। যার কারণে আমাদেরকে ভোগান্তি পোহাতে হয়।

এদিকে, বোরহানউদ্দিনের সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ ৫ হাজার জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে মামলা দায়ের করে। যার ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে চরম উৎকন্ঠা ও আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ ঘটনার পর থেকে ভোলায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।এ ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার বলেন, যে কোন ধরনের অপ্রিতিকর ঘটনা এড়াতে পুরো শহর জুড়ে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এর আগে সোমবার থেকেই পরবর্তি নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সকল ধরণের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করে জেলা প্রশাসন।
জেলা প্রশাসক মোঃ মাসুদ আলম ছিদ্দিক বলেন, সহিংসতা এড়াতে শহরে র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সাধারণ মানুষ যাতে হয়রানীর শিকার না হয় সে জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী টহলরত রয়েছে। সকল ধরনের সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পুরো জেলার সার্বিক পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

উপরে