প্রকাশিত : ১৬ নভেম্বর, ২০২১ ১৪:৫৬

সৈয়দপুরে গোলাহাট বধ্যভূমি পরিদর্শন করেছেন ভারতীয় হাইকমিশনার

সৈয়দপুর (নীলফামারী)প্রতিনিধি
সৈয়দপুরে গোলাহাট বধ্যভূমি পরিদর্শন করেছেন ভারতীয় হাইকমিশনার

সোমবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার শ্রী বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী নীলফামারীর সৈয়দপুর গোলাহাট বধ্যভূমি পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি বধ্যভূমিতে নির্মিত শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞলি নিবেদন করেন।

ভারতীয় হাইকমিশনার শ্রী বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী সন্ধ্যায়  সৈয়দপুর শহরের উপকন্ঠে গোলাহাট বধ্যভূমিতে এসে পৌঁছলে শহীদ পরিবারের সন্তান বিশিষ্ট শিল্পপতি রাজ কুমার পোদ্দার ও শ্রী গোবিন্দ চন্দ্র দাস তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। এছাড়াও নীলফামারী জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমানবিপিএম,পিপিএমও তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

এ সময়  রাজশাহীস্থ ভারতীয় সরকারি হাই কমিশনার  সঞ্জীব কুমার ভাটি, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাষ্টের সিনিয়র সহ-সভাপতি  মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি, নীলফামারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমানবিপিএম,পিপিএম,  সৈয়দপুর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মাহমুদুল হাসান, সৈয়দপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সানোআর আলম, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ সৈয়দপুর শাখার সভাপতি ও  বিশিষ্ট শিল্পপতি রাজ কুমার পোদ্দার রাজু, বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের সৈয়দপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শ্রী যোগেন্দ্রনাথ রায়, পৌর শাখার সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক গোপাল চন্দ্র রায়সহ শহীদ পরিবারে সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালের ১৩ জুন সৈয়দপুর শহরে বসবাসকারী হিন্দু ও মাড়োয়ারি পরিবারের সদস্যদের  নিরাপদে ভারতে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনে জড়ো করা হয়। পরে তাদের একটি বিশেষ ট্রেনে তুলে শহরের গোলাহাট এলাকায়  নিয়ে গিয়ে ট্রেন থেকে নামিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। সেদিন এদেশীয় রাজাকার আলবদর বাহিনী সহযোগিতায় পাকবাহিনী প্রায় ৪৪৮জন হিন্দু ও মাড়োয়ারী পরিবারের সদস্যকে ধাঁরালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যার পর সেখানে মাটি চাপা দেয়া হয়েছিল। পরিবারের শিশু ও বৃদ্ধ-বৃদ্ধা সদস্যরাও সেদিন ঘাতকদের হাত থেকে রেহাই পায়নি।                                             

 

উপরে