প্রকাশিত : ১৬ নভেম্বর, ২০২১ ২১:৫০
বাল্য বিয়ের আসরে ম্যাজিস্ট্রেট

নন্দীগ্রামে কনে নিয়ে পালালো বর, একজনের জরিমানা

নন্দীগ্রাম(বগুড়া)প্রতিনিধি
নন্দীগ্রামে কনে নিয়ে পালালো বর, একজনের জরিমানা

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার সদর ইউনিয়নের গোছন গুচ্ছগ্রামে আনুষ্ঠানিকভাবে বাল্য বিয়ে সম্পন্ন করার পর কনের বাড়িতে পুলিশসহ ম্যাজিস্ট্রেট দেখেই কিশোরী বধূকে নিয়ে পালিয়েছে বর। খাবার রেখে দৌড়ে চম্পট দেন অতিথিরাও। এসময় একজনকে আটক করে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রায়হানুল ইসলাম।

সোমবার (১৫ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৯টার দিকে জরিমানার টাকা আদায় করে আটককৃত শামীম হোসেন (২৭) নামের কনে পক্ষের সেই ব্যক্তিকে ছেড়ে দেওয়া হয়। সে শাজাহানপুর উপজেলার শাকপালা এলাকার আসলাম মন্ডলের ছেলে।

অর্থদন্ডিত শামীম জানান, তিনি দুুঃসম্পর্কে কনের ভাগনি জামাই। আমন্ত্রণ পেয়ে এসেছিলেন। জানতেন না এটা বাল্য বিয়ে। তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় এবং জরিমানা আদায় করে ছেড়ে দেয়।

জানা গেছে, গোছন গুচ্ছগ্রামের আব্দুল হাকিমের কিশোরী কন্যা হেলেন খাতুনের (১৫) সাথে সিংড়া উপজেলার বিলদহ গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে ফটিক মিয়ার (১৮) সোমবার বিকেলে স্থানীয় হুজুর দিয়ে বাল্য বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে খাবার খেতে বসেন অতিথিরা। খবর পেয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রায়হানুল ইসলামের নেতৃত্বে থানার এসআই শাহ সুলতান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে বাল্য বিয়ের আসরে হাজির হওয়ামাত্রই খাবার রেখে দৌড় দেন অতিথিরা। ম্যাজিস্ট্রেট এসেছে শুনেই কিশোরী বধূকে নিয়ে পালিয়ে যায় বর। দুইপক্ষের কাউকে না পেয়ে বাল্য বিয়ের আসরে উপস্থিত শামীম হোসেনকে আটক করে পুলিশ। আটককৃত ব্যক্তিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৫ হাজার জরিমানা করা হয়। তাৎক্ষনিক জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে না পারায় ওই ব্যক্তিকে থানায় নিয়ে যান ম্যাজিস্ট্রেট। রাতে জরিমানার টাকা আদায় করে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রায়হানুল ইসলাম বলেন, অর্থদন্ডিত ব্যক্তি কনে পক্ষের আত্মীয়। বাল্য বিয়ের আসর থেকে তাকে আটক করে অর্থদন্ড করা হয়েছে। 

উপরে