প্রকাশিত : ৩ মে, ২০২২ ২১:১৩

আমি বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি, শেখ হাসিনাকে দেখেছি!

সোহেল সানি
আমি বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি, শেখ হাসিনাকে দেখেছি!
মানুষের জীবন নামক যন্ত্রটা অকৃত্রিম। কিন্তু নেই, নিবুনিবু করে জ্বলে ওঠা প্রদীপশিখার আয়ুষ্কালের যোগবিয়োগে এক পলকের ভরসা। তারপরও মানুষের ক্ষমতা আর ঐশ্বর্য লাভের বাসনা চির-অতৃপ্ত এবং অসীম। কেবল স্রষ্টার অসীমত্বে সমর্পণের মাধ্যমেই মানুষ শান্তি প্রশান্তি কিংবা তৃপ্তি পেতে পারে। আর এভাবেই স্রষ্টার কৃপায় মানুষ পেতে পারে নতুন জীবন, ক্ষমতা, যশ বা খ্যাতি। আমার মতো অতিশয় নগন্য এক মানবসন্তান স্রষ্টার কৃপায় সেই নতুন জীবনই পেলাম। আমি জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে স্রষ্টার কৃপা লাভের পাশাপাশি এবার দেখা পেলাম এক আত্মোৎসর্গকারী মহাপ্রাণের। যে মহাপ্রাণের নাম শেখ হাসিনা। তিনি বাংলাদেশের  প্রধানমন্ত্রী, তারচেয়েও বড় পরিচয় তিনি জাতির পিতার কন্যা। 
 
গত ১৫ মার্চ ছিলো, বাংলাদেশ প্রতিদিনের দু'যুগে পদার্পণের অনুষ্ঠান চলছিলো। আমি ওই অনুষ্ঠানে হৃদরোগে আক্রান্ত হই।  সেদিনের সঙ্গে আজকের দিনটার উপলব্ধি করলে সত্যিই আমার দু'চোখে কান্নার সাঁতার কাটে। ওই বুক বিদীর্ণ করে যখন সমগ্র পৃথিবীটা  নিঃশ্বাসের ওপর চাপা পড়েছিল, তখন শুধু মহান আল্লাহর নাম যব করে বাঁচতে চাচ্ছিলাম, আর মা - মা করে চিৎকার করছিলাম। যন্ত্রণাক্লিষ্ট মুহূর্তটিও ভুলাতে পারেনি, আমার দুটো সন্তানের কথা। আল্লাহ সত্যিই মেহেরবান, আমাকে কৃপা করেছেন, ক্ষমা করেছেন। আমার আদুরে  সন্তান দুটো বাবা হারা হয়নি। মহান আল্লাহ আমার সব গুনাহ ক্ষমা করে দিয়ে হয়তো নতুন করে ঘুরে দাঁড়ানোর পথ রচনা করে দিয়েছেন। তাঁর অসীম কৃপায় আমি সাক্ষাৎ পেয়ে গেছি সেই আত্মোৎসর্গী মহাপ্রাণ শেখ হাসিনার। তিনি আমার অবুঝ দুটো সন্তানের জন্য ত্রিশ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্রও প্রদান করলেন।
 
শুধু তাই নয়, আমি হৃদরোগে আক্রান্ত হবার খবরে তৎক্ষনাৎ আমাকে শুনিয়ে দেন অভয়ভানী। তিনি বলেন, " তুমি মনখারাপ করো না, তোমার চিকিৎসার জন্য যা খরচ লাগে, আমি দেবো, দোয়া করি মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তোমাকে সুস্থ রাখুন।" তিনি আমার অপারেশন সফল হবার খবর শুনে বলেছেন,"আলহামদুলিল্লাহ দোয়া করি তুমি সুস্থ হয়ে ওঠো।"
 
এ কথা শুনে আমি অঝোরে কেঁদেছি।     আমি গুণিমান্য আপার নগন্য এক কর্মী। প্রধানমন্ত্রী তাঁর সহকারী আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার হসপিটালে পাঠিয়ে আমার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন এবং তার মাধ্যমে আমাকে আনুষ্ঠানিকভাবে ত্রিশ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র তুলে দিয়েছেন। উন্নত চিকিৎসারও আশ্বাস দেন। আমি অভিভূত। এই পর্যায়ে উপবিষ্ট থেকে তাঁর ন্যায় রাষ্ট্রের সর্বোচ্চো ক্ষমতাধর ব্যক্তির সহানুভূতিলাভ সে তো বিস্ময়করই বটে। ঘাতপ্রতিঘাতে বেড়ে ওঠা আমার মতো একজন সংবাদকর্মীর জন্য তাঁর উদারনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি আমাকে আবেগাপ্লুত করে তুলে। দেশের স্বনামধন্য শিল্প পরিবার 
 
বসুন্ধরা গ্রুপ আমার পাশে দাঁড়ানোর পরও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এরকম সহানুভূতিপরায়ণ মনোভঙ্গি আমাকে নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখাতেই পারে। 
আওয়ামী লীগের ২০০১ সালের অক্টোবর বিপর্যয়ের পর বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনার খুব কাছাকাছি চলে গিয়েছিলাম। তখন একটি জাতীয় দৈনিকের জন্য তাঁর একটি সাক্ষাতকার গ্রহণের আমার সৌভাগ্য হয়েছিলো। তিনি তখন  বলেছিলেন,"তুমি লিখো ভালো, তোমাকে দিয়ে আমি বিভিন্ন স্টোরি তৈরি করবো, আমি বলবো তুমি লিখবে।" বিএনপি-জামাতের দুঃশাসনের যাঁতাকলে তখন পিষ্ট হতে  হতে থাকে দেশবাসী। ফলে তা আর হয়ে ওঠেনি।
 
আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয় যখন ধানমন্ডির ১২/এ তখন একদিন আপা দলের তৎকালীন সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মান্নানকে নির্দেশ দিয়ে বললেন, আমাকে চেয়ার-টেবিল দিয়ে বসিয়ে দিতে। যাহোক আমি নিজেই নিজেকে সারাটা জীবন বঞ্চিত করেছি। ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি, যা "ওয়ান ইলেভেন" বলে পরিচিত। তখন আমি দৈনিক আমাদের সময় ও দৈনিক বাংলাবাজার পত্রিকায় কাজ করি। ওয়ান ইলেভেনের দিনই স্পর্শকাতর সূত্রের বরাত দিয়ে বাংলাবাজার পত্রিকায় "রাষ্ট্রপতি ডঃ ইয়াজউদ্দিন প্রধান উপদেষ্টার পদ থেকে সরে না দাঁড়ালে হস্তক্ষেপ করবে সেনাবাহিনী" শীর্ষক একটি রিপোর্ট করি।
 
ওদিন রাতেই মুখোশধারী দুষ্কৃতকারীরা আমার জীবন স্তব্ধ করে দেয়। ধারালো অস্ত্র দিয়ে আমার দেহটাকে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে দেয়। হাতের রগ কেটে দেয়, করে বাম পায়ের প্যাটেলাটি বিচ্ছিন্ন। ২০০৭ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত আমাকে লাঠি ভর পথ চলতে হয়। ২০২০ সালে প্রধানমন্ত্রী গণভবনে দেখে এ পরিণতির কারণ শুনে আমাকে সাত লাখ টাকা দেন চিকিৎসার জন্য। আসলে গ্রেট ব্যক্তিদের জীবন বড়ই বিচিত্র। প্রকারান্তরে তারা একা, ভীষণ একা, অপরাহ্নের খাঁ-খাঁ রোদেলা আকাশে উড়তে থাকা চিলের মতো একা। গ্রেট নেপোলিয়ন বোনাপার্ট  বলেছেন, "আমি হয়তো পুরো পৃথিবীকে পায়ের তলে রাখতে পারি, কিন্তু শান্তিময় নিদ্রার জন্য তো সাতটি রাতও দু'চোখের পাতাকে এক করতে পারিনি।" ভাবছি শেখ হাসিনাও কি কোন রাতে চোখের পাতাকে এক করতে পারছেন? বাবা-মা, ভাই-ভাবীদের হারিয়ে? হ্যাঁ তারপরও তিনি বাংলার মানুষের জন্য বহুমাত্রিক প্রতিভা। তাঁর নেতৃত্বগুণে বাংলাদেশ পৌঁছেছে শেকড় থেকে শিখরে। নিজেকেও নিয়ে গেছেন অনন্য-সাধারণ এক উচ্চতায়। ক্ষমতা, যশ ও খ্যাতির চূড়ায় অবতীর্ণ তিনি। প্রতিভা,মেধাগুণে জীবন যে হয়ে উঠতে পারে সুখময় সুসমৃদ্ধ। জীবনে বেদনাবিধুর স্মৃতিও থাকে। উত্থান-পতনের স্রোতধারায় বয়ে চলা ঘটনাপ্রবাহের নামই হলো পরিপাটি বা পরিপূর্ণ জীবন। সুখ-দুঃখের জীবন। ঠিক সুখদুখমাখা একটি জীবনের নাম শেখ হাসিনা। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা। পিতার ন্যায় শেখ হাসিনাও প্রকৃষ্ট-প্রকৃত জাতীয়তাবাদী নেতা।ইতিহাসের কী অদ্ভুত প্রদর্শন! শেখ মুজিব এক রাজা-মহারাজা। যাঁর নামে মুক্তা ঝরে, নীলাদ্রি আকাশে উড়ে লাল-সবুজের পতাকা, স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা। গ্রেট ফিদেল কাস্ত্রো বলেছেন,"আমি হিমালয় দেখিনি শেখ মুজিবকে দেখেছি।" আর আমি বলছি, আমি বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি, আমি শেখ হাসিনাকে দেখেছি। নদীবিধৌত মধুমতী কোলআঁধারের ছায়াশান্ত পল্লীমঙ্গলারূপী টুঙ্গিপাড়াতে ভূমিষ্ঠ শেখ হাসিনা মানুষের সুখদুখের হিমাদ্রিসদৃশ অটল এক প্রতিজ্ঞার নাম। 
 
লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক, কলামিস্ট ও ইতিহাস গবেষক।
উপরে