প্রকাশিত : ২ জুলাই, ২০২২ ১৫:২৩

হিলি বাজারে পুরনো গাছ যেন মরণ ফাঁদ

হিলি দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ
হিলি বাজারে পুরনো গাছ যেন মরণ ফাঁদ

দিনাজপুরের হিলি বাজারের পুরনো গাছগুলো এখন মরণ ফাঁদ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। প্রতিনিয়ত ভেঙে পড়ছে শুকনো ডালপালা। যে কোন সময়  ঘটতে পারে দুর্ঘটনা, আতঙ্কে আছে ক্রেতা-বিক্রেতা সহ পথচারীরা।

 
একটি ঐতিহ্যবাহী হিলি খাসমহল হাট-বাজার। এই বাজারে রয়েছে ৭০০ থেকে ৮০০ টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। বাজারের বিভিন্ন স্থানে বেড়ে উঠেছে শতবর্ষি এন্টিকড়ই গাছ। প্রতিটি ব্যবসায়ীদের দোকানের মাঝ থেকে বেড়ে উঠছে গাছগুলো। গাছগুলোর প্রায় মোটা ডালগুলো শুকিয়ে গেছে। একটু ঝড়বৃষ্টি হলেই ডালগুলো ভেঙে পড়ে গাছের তলায় থাকা দোকানগুলোর উপরে। কিছুদিন আগের ঝড়-বাতাসে বাজারের মাঝে একটি দোকানে মোটা বড় ডাল ঙেগে পড়ে। দোকানে থাকা অনেক মালামাল নষ্ট হয়ে যায়। অল্পের জন্য বেঁচে যায় দোকানে থাকা ক্রেতা-বিক্রেতারা। বাজারটিকে ঘিরে রেখেছে ১০০ বছর ঊর্ধি ১৪ টি এন্টিকড়ই গাছ। প্রতিদিনই গাছের শুকনো ডালগুলো ঙেগে পড়ে দোকান সহ পথচারীদের উপর। ঝড়-বাতাস হলেই দিশেহারা হয়ে পড়ে হিলি বাজার ব্যবসায়ীরা।
 
হিলি বাজারের ব্যবসায়ী আব্দুর রশিদ বলেন, হিলি বাজারের গাছগুলোর অনেক বয়স হয়ে গেছে। আমরা খুবি আতঙ্কে ব্যবসা-বাণিজ্য করে আসছি। মাথার উপর বিপদ রেখে চলাচল করতে হচ্ছে। বাতাস হলেই মনে হয় এই বুঝি গাছ ভেঙে দোকানের উপর পড়ছে।
 
স্থানীয় ইমরুল কায়েস বলেন, পুরো বাজারটাই এই গাছগুলো ঘিরে রেখেছে। সারাদিনই কম-বেশি গাছের শুকনা ডাল ভেঙে পরে। গাছগুলো কর্তন না করলে আমার মনে হয় যে কোন সময় একটা বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। 
 
কয়েক জন দোকানদার বলেন, এন্টিকড়ই গাছগুলো আমাদের মাথায় মরণ ফাঁদ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আমরা সব সময় আতঙ্কে থাকি, শান্তিতে ব্যবসা করতে পারি না। আমাদের দাবি সরকার যেন এই মরণ ফাঁদ থেকে আমাদের রক্ষা করে। আমরা চাই অচিরেই গাছগুলো যেন কর্তন করা হয়।
 
হাকিমপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বুলু বলেন, শতবর্ষি হিলি বাজারের গাছগুলো কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। তবে বর্তমান গাছগুলো এমন রুপ ধারণ করেছে তা মানুষের অনেক ক্ষতিকর হতে পারে। তাই গাছগুলো জরুরি ভাবে কর্তন করা দরকার।
 
হিলি খাসমহল হাট ও বাজার সমিতির সাধারণ সম্পাদক আরমান আলী বলেন, বাজারের মধ্যে সব গাছগুলো ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে, সবাই আতঙ্কে থাকে। এর আগে বাজার কমিটি পৌর মেয়র ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বলে গাছগুলোর ডালপালা কাটা হয়েছিল। এবারও ইউএনও ও মেয়রকে বলে কাটার ব্যবস্থা করবো।
 
হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নুর-এ-আলম বলেন, হিলি বাজারের পুরনো গাছগুলোর বিষয়ে বাজার কমিটি এবং হাট মালিকরা যদি আমার নিকট অভিযোগ করেন তাহলে পৌর মেয়রের সাথে আলোচনা করে গাছগুলো কাটার ব্যবস্থা গ্রহন করবো।
 
এবিষয়ে হাকিমপুর পৌর মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত বলেন, হিলি বাজারের গাছগুলো পুরনো হয়ে গেছে, গাছগুলো বিপদজনক। তবে হাট কমিটি যদি লিখিত রেজুলেশনের মাধ্যমে আমাকে অবগত করেন তাহলে আমি জেলা প্রশাসকের নিকট জানাবো এবং গাছগুলো কাটার ব্যবস্থা গ্রহন করবো।
 
উপরে