প্রকাশিত : ৬ আগস্ট, ২০২২ ২১:৩৮

বগুড়ায় প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো রোবটিক্স অলিম্পিয়াড

সঞ্জু রায়:
বগুড়ায় প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো রোবটিক্স অলিম্পিয়াড

দেশে আগামী ৩০ বছর ধরে তরুণ বা উৎপাদনশীল জনগোষ্ঠী সংখ্যাগরিষ্ঠ থাকবে তাই চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুফল ভোগে তরুণ জনগোষ্ঠীকে উৎসাহিত করতে উত্তরবঙ্গে সর্বপ্রথম বগুড়ায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো রোবটিক্স অলিম্পিয়াড। সারাদেশের ৪৯ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০৬টি দলের মোট ৩৩১ জনের প্রাণবন্ত অংশগ্রহণে শনিবার বগুড়ায় দিনব্যাপী এই আয়োজন করে জাতীয় কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ও গবেষণা একাডেমী (নেকটার)। 

এতে অংশ নেয়া বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজাহাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশসহ দেশের অনেক স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান। প্রথমবারের মতো বগুড়ায় আয়োজিত এই অলিম্পিয়াড ৪ টি ক্যাটাগরিতে অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে রয়েছে রবো সকার, লাইন ফলোয়িং রবোটিক্স প্রতিযোগিতা, প্রজেক্ট শোকেসিং (জুনিয়র), পোস্টার প্রেজেন্টেশন (জুনিয়র), প্রজেক্ট শোকেসিং (সিনিয়র) ও পোস্টার প্রেজেন্টেশন (সিনিয়র) প্রতিযোগিতা। প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা দুটি অংশে বিভক্ত হয়ে এই অলিম্পিয়াডে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। এবারের অলিম্পিয়াডে সারাদেশের শিক্ষার্থীদের ১০৬টি দলের মাঝে ৯০টি দল রোবট প্রদর্শিত করে এবং বাকিরা রোবটিক্স সম্পর্কিত আইডিয়া তুলে ধরেন। 

এর আগে সকাল ৯টায় নেকটার হল রুমে এ উপলক্ষে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোঃ মহসিন। বগুড়া নেকটারের পরিচালক (উপ সচিব) মোঃ শাফিউল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন এটুআই প্রকল্প পরিচালক (যুগ্ম সচিব) ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর এবং বুয়েটের সাবেক ডীন ও বিশিষ্ট কম্পিউটার বিজ্ঞানী প্রফেসর ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, রোবটিক্স অলিম্পিয়াডের উদ্দেশ্য হলো দেশে আধুনিক স্মার্ট প্রযুক্তি ব্যবহার করে চলমান উৎপাদন এবং শিল্প ব্যবস্থার স্বয়ংক্রিয়করণ। এর মাধ্যমে ইন্টারনেট অব থিংকিং (আইওটি) ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার মানবসম্পদের বিকল্প হিসেবে কাজ করবে। বক্তারা আরো বলেন, দেশে বর্তমানে তরুণের সংখ্যা প্রায় চার কোটি ৭৬ লাখ। যা মোট জনসংখ্যার শতকরা ৩০ ভাগ। আগামী ৩০ বছর ধরে তরুণ বা উৎপাদনশীল জনগোষ্ঠী সংখ্যা গরিষ্ঠ থাকবে। বাংলাদেশের জন্য চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুফল ভোগ করার জন্য তরুণরাই সবচাইতে বড় শক্তি।

ব্যতিক্রমী এই আয়োজনে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীদের অনেকের সাথে কথা হয়। তাদের মাঝে ঢাকা ডুয়েট এর ২য় বর্ষের ছাত্র শাহাদৎ হোসেন জানান, দীর্ঘদিন ধরেই রোবটিক্স ক্লাবের সাথে যুক্ত থেকে ভাল লাগা থেকে সে রোবট ও সর্বদা নতুন কিছু উদ্ভাবনের প্রচেষ্টা করে থাকে। ভবিষ্যতে এই ক্ষেত্রতেই এগিয়ে যেতে চাই সে। 

সাতক্ষীরা থেকে নিজের সন্তানকে নিয়ে উক্ত অলিম্পিয়াডে আসা শরিফা সুলতানা অত্যন্ত গর্ব নিয়ে বলেন, তার ৯ম শ্রেনীতে অধ্যয়নরত ছেলে প্রিন্স ইয়াসির আরাফাত যে অন্ধদের জন্যে এমন এক লাঠি রোবট উদ্ভাবন করেছেন যা দিয়ে কোন অন্ধ মানুষের পথ চলতে গিয়ে সামনে আসা সকল বাধা বা প্রতিবন্ধকতাকে আগে থেকেই সতর্ক দিতে সক্ষম। ছেলের এই প্রচেষ্টাতে মা হিসেবে তিনি অত্যন্ত গর্বিত। তিনি বলেন, তার ছেলে ভবিষ্যতে এই নতুন নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে বড় হয়ে যা হবেন তাতেই তিনি খুশি। অভিভাবক শরিফা সুলতানার মতো এমন আবেগী অনুভূতি প্রকাশ করে অলিম্পিয়াডে আসা অন্যান্য অভিভাবকেরাও।

নেকটারের এই আয়োজন প্রসঙ্গে বগুড়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি মাহমুদুল আলম নয়ন এবং বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জে এম রউফের সাথে পৃথকভাবে কথা বললে তারা জানান, তরুণ প্রজন্মের জন্যে রোবটিক্স অলিম্পিয়াডের আয়োজন সত্যিই প্রশংসনীয়। শিক্ষার্থীরা নিজেদের মেধা ও সৃজনশীলতায় যেভাবে বিভিন্ন ধরণের কাজ করতে সক্ষম রোবট তৈরি করেছে তা সত্যিই ইতিবাচক আগামীর জানান দেয়। মৎস চাষে সহায়ক রোবট, সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধক হেলমেট, জমির সুরক্ষায় স্মার্ট কাকতারুয়া রোবট, ডাক্তার রোবট, নির্দেশনা পালনকারী স্বয়ংক্রিয় রোবটসহ শিক্ষার্থীদের নানা আবিষ্কার দেখে তারা মুগ্ধ। প্রযুক্তিনির্ভর এই জ্ঞানের বিকাশে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় আরো নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণেরও আহ্বান জানান তারা। 

প্রথমবারের মতো আয়োজিত রোবটিক্স অলিম্পিয়াড প্রসঙ্গে নেকটারের পরিচালক (উপসচিব) মো. শাফিউল ইসলাম বলেন, জনগণের মাঝে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের গুরুত্ব তুলে ধরতে বগুড়ায় প্রথমবারের মত ‘রোবটিক্স অলিম্পিয়াড’ এর আয়োজন করা হয়। এর মাধ্যমে তরুণ জনগোষ্ঠীকে উৎসাহিত করাই প্রধান উদ্দেশ্য। তিনি বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে স্মার্ট প্রযুক্তির ব্যবহার। প্রযুক্তির যত বেশি ব্যবহার করা যাবে বাংলাদেশ তত এগিয়ে যাবে। ধারণা করা হয়, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ফলে বিপুল পরিমাণ জনগোষ্ঠী চাকরি হারাবে। তবে অপরদিকে তৈরী হবে নতুন কিছু কর্মক্ষেত্র যেখানে কম্পিউটারের যন্ত্রাংশ তৈরি ও অ্যাসেম্বলিং, সফটওয়্যার তৈরি এবং ডাটা প্রসেসিং কাজে দেশের লাখ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে তাই এই কার্যক্রমের গুরুত্ব অপরিসীম।

উপরে