প্রকাশিত : ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২৩:৩৪

বগুড়ায় রেকর্ড বৃষ্টিতে জনজীবনে দুর্ভোগ

ষ্টাফ রিপোর্টার
বগুড়ায় রেকর্ড বৃষ্টিতে জনজীবনে দুর্ভোগ
বগুড়ায় সোমবার রাত থেকে টানা বৃষ্টি হচ্ছে যাতে জনজীবনে নেমে এসেছে সীমাহীন দুর্ভোগ।  মঙ্গলবার সকাল ৬ টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মাত্র ৬ ঘণ্টায় জেলায় ১০৯ দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টি রের্কড করা হয়েছে। যা এখন পর্যন্ত এই মৌসুমে সর্বোচ্চ।
এছাড়া একই এময় বাতাসের গতিবেগ রেকর্ড করা হয়ছে ৪০ কিলোমিটার। তথ্যটি নিশ্চিত করেন বগুড়া আবহওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশেকুর রহমান।

এদিকে বর্ষাকালেও এমন বৃষ্টি না দেখা জনসাধারণকে দৈনন্দিন জীবনের কাজ নিয়ে শরৎকালে বৃষ্টি  বিড়ম্বনায় পরতে হয়েছে সারাদিন।

সোমবার দিবাগত রাত থেকে শুরু হওয়া টানা বৃষ্টিতে বগুড়া শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথা, সেউজগাড়ি, বাদুড়তলা, শেরপুর সড়কের মফিজ পাগলার মোড়, কলোনী, গোহাইল সড়কের ফুলতলা, কৈগাড়ী, খান্দার ও সূত্রাপুর এলাকাসহ পৌর এলাকার অধিকাংশ স্থানেই ব্যাপক জলাবন্ধতার সৃষ্টি হয়। পৌরসভার খোলা ড্রেন ও সড়ক পানিতে একাকার হয়ে যায়। যদিও বগুড়া পৌরসভার সঠিক পরিকল্পনা ও উদ্যোগের অভাবে এই এলাকাগুলোর বেশিরভাগই সারাবছরই স্বল্প বৃষ্টিতেই ডুবে থাকে আর রেকর্ড বৃষ্টিতে এমন নেতিবাচক পরিস্থিতি আর নতুন কি!
 
এদিকে সড়কে জলাবন্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় মঙ্গলবার দুপুর থেকেই বগুড়া শহরে যান চলাচল একদমই কম ছিল। এতে অনেককে সড়কে ঘণ্টাখানেক দাঁড়িয়ে থাকতে হয়েছে রিক্সা বা অটোর জন্যে। ফলে সময় মত অনেকেই কর্মস্থলে যেতে পারেন নি। 
 
এর আগে, ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে মঙ্গলবার অনেকেই ঘর থেকে বের হতেই পারেননি। টানা এই বৃষ্টি বিত্তবান পরিবারের কাছে উপভোগ্য হলেও বগুড়ার আপামর খেঁটে খাওয়া মানুষগুলো পড়েছে বেশ বিপাকে। ফুটপাতে দোকান দেয়া ব্যবসায়ীরা যেমন সারাদিনে সংসার চালানোর খরচ তুলতে পারেনি তেমনি বগুড়ার বড় পাইকারী ও খুচরা বাজারগুলোও ছিল ক্রেতাশূণ্য। আবার অনেকে পৌর এলাকায় ভঙ্গুর ড্রেনেজ ব্যবস্থার কারণে সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় সকাল থেকে নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানই খুলতে পারেনি এমন চিত্র দেখা গেছে শহরের বিভিন্ন স্থানে। সবমিলিয়ে সীমাহীন দুর্ভোগে রয়েছে বগুড়ার আপামর জনসাধারণ। 

এদিকে সর্বশেষ বগুড়া আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সারাদিন এমনকি রাতেও মাঝারি ও ভাড়ি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। নিম্নচাপের কারণে এই বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এছাড়াও এই বৃষ্টি আগামী ৩ দিন স্থায়ী হয়ে ১৬ তারিখ পর্যন্ত থাকতে পারে৷

 
 
 
 
 
উপরে