প্রকাশিত : ৩ নভেম্বর, ২০২৩ ২১:৩২

জেল হত্যা পৃথিবীর ইতিহাসে সর্বোচ্চ মানবাধিকার লঙ্ঘন: মজনু

প্রেস বিজ্ঞপ্তি
জেল হত্যা পৃথিবীর ইতিহাসে সর্বোচ্চ মানবাধিকার লঙ্ঘন: মজনু
বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মজিবর রহমান মজনু বলেছেন, ৩রা নভেম্বর শুধু বাংলাদেশের জন্য নয় সারা বিশ্বের ঐতিহাসিক কলঙ্কের দিন। পৃথিবীর কোথাও কারাবন্দী কাউকে হত্যা করা হয়নি। ৭১ এর পরাজিত শক্তিরা ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যেদের হত্যা করে জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করার কারণ ছিল তারা চেয়েছিল বাংলাদেশ থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতি নিশ্চন্ন করা এজন্য তারা শিশু রাসেল কেউ হত্যা করেছিল । ৩রা নভেম্বর জেল হত্যা পৃথিবীর ইতিহাসে সর্বোচ্চ মানবাধিকার লঙ্ঘন । এই হত্যাকারীদের পুনরায় মানবাধিকার লঙ্ঘন আইনে আওতায় বিচারের দাবী জানাচ্ছি।
 
তিনি ৩রা নভেম্বর সকালে দলীয় কার্যালয়ে বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
 
তিনি আরও বলেন, ৭৫ এ বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর ৮১ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা আজকের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফিরে বলেছিলেন, আমাদের শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করে এই খুনীদের বিরুদ্ধে এই পাকস্থানী যারা দোশর ছিল তাদের  বিরুদ্ধে দলকে সংগঠিত করে আবার মানুষের কাছে যেতে হবে এবং এই খুনীদের ও স্বাধীনতা বিরোধীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। আজকে সেই শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করে আমাদের মানানীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বে আজকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ঘুরিয়ে দাড়িয়েছে এবং বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন ছিল তা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে এবং বাংলাদেশকে সুখী সমৃদ্ধি ও উন্নয়শীল দেশ হিসেবে গড়ে তুলছে।
 
জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ডাবলুর সঞ্চালনায় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বগুড়া সদর আসনের সংসদ সদস্য রাগেবুল আহসান রিপু।
 
তিনি বলেন, ৩ রা নভেম্বর এর মত নেক্কারজনক ঘটনা পৃথিবীর ইতিহাসে খুব কম ঘটেছে। আজকে বিভিন্ন দেশ আমাদের উপর মানবাধিকারের কথা বলে কিন্তু কেউ একবার ভাবেনা যে পৃথিবীতে সবচেয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছিল এই ৩রা নভেম্বরে। জেল খানা হচ্ছে মানুষের সবচেয়ে নিরাপদ স্খান, এই স্থানে যে হত্যাকান্ড সংগঠিত হয়েছিল এরচেয়ে বড় মানবাধিকার আর কোথাও হয়নি। দেশে যুদ্ধঅপারধের মানবাধিকার লঙ্ঘন আইনে বিচার হয়েছে কিন্তু ৩রা নভেম্বর হত্যাকারীদের সাধারণ আইনে বিচার হয়েছে। ভবিষ্যতে আমাদের এই পাপ মোচনের জন্য আমাদের আরও শক্তিশালী হয়ে পুনরায় এর বিচার করতে হবে।
 
এসময় আরও বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী নেতা, আবুল কালাম আজাদ, এ্যাড. আমানউল্লাহ আসাদুর রহমান দুলু, সাগর কুমার রায়, অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন নবাব, অধ্যক্ষ শাহাদাত আলম ঝুনু,আনিছুজ্জামন মিন্টু, খালেকুজ্জামান রাজা, মাশারাফী হিরো, আনোয়ার পারভেজ রুবন, নাসরীন রহমান সীমা, রুহুল মোমিন তারিক, শেরিন আনোয়ার জর্জিস, শামছুল আলম জয়, আবু সেলিম, এম এ বাসেত, মাহবুবা নাসরিন রূপা, আলমগীর স্বপন,গৌতম কুমার,  শুভাশিষ পোদ্দার লিটন, ভিপি সাজেদুর রহমান সাহীন, সাবরিনা পিংকী, আবদুস সালাম, আলমগীর বাদশা, কামরুল মোর্শেদ আপেল, মুঞ্জুরুল হক , রাশেদুজ্জামান রাজন,সজিব সাহা প্রমুখ। এসময় আওয়ামী লীগ,অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।
উপরে