প্রকাশিত : ১৮ নভেম্বর, ২০২৩ ১২:৪৪

সৈয়দপুরে ট্রাফিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে: তীব্র যানজট নাকাল শহরবাসী

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:
সৈয়দপুরে ট্রাফিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে: তীব্র যানজট নাকাল শহরবাসী
নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌর শহরে ট্রাফিক ব্যবস্থা একেবারে ভেঙ্গে পড়েছে। শহরের প্রধান প্রধান সড়কগুলোতে প্রতিদিন সকাল থেকে রাত অবধি তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এতে অসহনীয় যানজটের কবলে পড়ে সকল শ্রেণির ও পেশার মানুষ চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন। উপজেলা আইনশৃংখলা কমিটির মাসিক সভা, বিভিন্ন সভা-সমাবেশ, সেমিনার, গোলটেবিল বৈঠক ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও যানজটের অতিষ্ঠ মানুষজন নিজের ক্ষোভ ও অসহায়ত্বে কথা তুলে ধরছেন।
নীলফামারীর প্রথম শ্রেণির একটি পৌরসভা সৈয়দপুর। এটি বিগত ১৯৫৮ সাল প্রতিষ্ঠা পায়। এ পৌরসভার মোট আয়তন ৩৪.৪২ বর্গকিলোমিটার।  ১৫ টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত সৈয়দপুর পৌরসভা লোকসংখ্যা দেড় লক্ষাধিক। শিক্ষানগরী হিসেবে খ্যাত সৈয়দপুর পৌরসভায় দিন দিন লোকজন বাড়ছে। ফলে তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন বাসাবাড়ি, দোকানপাট ও  ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু পৌরসভার লোকসংখ্যার তুলনায় শহরে সড়কের সংখ্যা ও প্রশস্ততা একেবারে অপ্রতুল।
 
এ শহরের প্রধান প্রধান সড়কগুলো হচ্ছে, বঙ্গবন্ধু সড়ক,শহীদ ডা. জিকরুল হক সড়ক, শহীদ সামসুল হক সড়ক, শহীদ ক্যাপ্টেন সামসুল হুদা সড়ক (বিমানবন্দর রোড), শহীদ তুলশীরাম সড়ক, শহীদ জহুরুল হক সড়ক ও শেরে বাংলা সড়ক। শহরের উল্লিখিত সড়কগুলোকে ঘিরে গড়ে উঠেছে এখানকার সকল দোকানপাট, ব্যবসা বাণিজ্য ও শিল্প প্রতিষ্ঠান। এ সব সড়কে গড়ে উঠা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রতিদিন সৈয়দপুর উপজেলার মানুষজন ছাড়াও আশেপাশের দিনাজপুরের চিরিরবন্দর, খানসামা, রংপুরের তারাগঞ্জ, বদরগঞ্জ, দিনাজপুরের পার্বতীপুর, নীলফামারী সদর ও কিশোরগঞ্জ উপজেলার মানুষজন মালামাল কেনাবেচার জন্য আসেন প্রতিদিন। আগত মানুষজন শহরে  বাইসাইকেল,মোটরসাইকেল, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, রিকশাভ্যান প্রভূতি করে এ শহরে আসছেন। এ সব কারণে প্রতিদিন শহরের ঢুকছে অসংখ্যক নানা রকমের যানবাহন। সৈয়দপুর পৌরসভা কর্তৃক লাইসেন্সপ্রাপ্ত রিকশা, রিকশাভ্যান ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা বাইরে কয়েকগুন বেশি এ সব যানবাহন প্রতিদিন শহরে ঢুকছে। অনিয়ন্ত্রিত এ সব যানবাহনের কারণে দৈনন্দিন শহরে সৃষ্টি হচ্ছে মাত্রাতিরিক্ত যানজট। ফলে মানুষজন তীব্র যানজটে পড়ে মারাত্মক ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। যদিও শহরের যানবাহন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। কিন্তু ট্রাফিক পুলিশের জনবল সংকটসহ নানাবিধ কারণে শহরের যানজট নিয়ন্ত্রণ করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে।
 
ট্রাফিক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, শহরের সার্বিক ট্রাফিক ব্যবস্থা দেখভালে রয়েছে ট্রাফিক ইন্সপেক্টর(টিআই) দুইজন, ট্রাফিক সার্জন দুই জন, টাউন  উপপরিদর্শক (টিএসআই)একজন, সহকারী টাউন উপপরিদর্শক (এটিএসআই) চারজন ও কনস্টেবল পাঁচজন। শহরের চারটি পয়েন্টে সকাল আটটা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ট্রাফিক পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। এরপরও বিভিন্ন উৎসব অর্থাৎ ঈদ,পূর্জা কিংবা ভিভিআইপি আগমনের কারণে অনেক সময় গভীর রাত অবধি ট্রাফিক পুলিশকে তাদের দায়িত্ব কর্তব্য পালন করতে হয়।
 
ট্রাফিক পুলিশ বিভাগের সূত্রে জানা গেছে, মূলতঃ শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার অবৈধ স্ট্যান্ড গড়ে ওঠার কারণে এ শহরে যানজট নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়াও শহরের ভেতর দিয়ে রয়েছে রেলপথ। ফলে দিনে রাতে কয়েকবার বেশ কয়েকটি আন্তঃনগর ও মেইল লোকাল ট্রেন চলাচলের কারণে দুইটি লেভেলক্রসিংগুলো (রেলগেট) বন্ধ থাকছে অনেক সময় ধরে। এতে করেও শহরে  মারাত্মক যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে প্রতিনিয়ত। 
 
অন্যদিকে,শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো দখল করে বিভিন্ন রকম দোকানপাট হওয়ায়ও সড়কের প্রশস্ততা কমে যাচ্ছে। ফলে সড়কগুলো দিয়ে যানবাহনগুলো ঠিকভাবে চলাচল করতে গিয়ে চরম বাঁধার সম্মূখীন হচ্ছে প্রতিনিয়ত। পৌর পরিষদের পক্ষ থেকে একাধিকবার শহরের সড়ক দখল করে গড়ে উঠা দোকানপাট উচ্ছেদ করা হয়। কিন্তু  কয়েক দিন যেতে না যেতে আবারও সড়কজুড়ে বসে অভৈধ বিভিন্ন  রকম দোকানপাট। সর্বশেষ গত ১৬ নভেম্বর সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র রাফিকা আকতার জাহান বেবীর নেতৃত্বে শহরের সড়কগুলোতে বসা অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদ করতে গিয়ে এক বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। কয়েকজন স্বার্থান্বেষী ব্যবসায়ীর নেতৃত্বে অবৈধ দোকানপাট মালিকেরা জোটবদ্ধ হয়ে পৌরসভা কার্যালয় ঘেরাও করে। এ সময় ওই সব ব্যবসায়ীদের রোষানলে পড়ে পৌরসভার কর্মকর্তা- কর্মচারীরা। পরে সৈয়দপুর থানারঅফিসার ইনচার্জ(ওসি) নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।
 
এদিকে, সৈয়দপুর পৌর শহরের যানজট সমস্যা নিযে উপজেলা আইনশৃংখলা কমিটির মাসিক সভায় ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। নেয়াও হচ্ছে শহরের যানজট নিয়ন্ত্রণে নানা পদক্ষেপ কিংবা কার্যকরী ব্যবস্থা। কিন্তু তারপরও এ সমস্যার কোন সমাধান হচ্ছে না।  শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও সৈয়দপুর শহরে তীব্র যানজটের দেখা মিলে। এতে করে শহরে কেনাকাটা করতে আসা শহরবাসী মারাত্মক যানজটের সম্মূখীন হয়। গতকালকের যানজটের বিষয়ে নীলফামারী জেলা পরিষদের সদস্য সৈয়দপুর পৌরসভার আট নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মিজানুর রহমান লিটন তাঁর ফেসবুকে নিজের টাইমলাইনে একটি স্ট্যাটার্স দেন।
 
এর আগে গত ১০ নভেম্বর বেসরকারি সংস্থা ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের সহযোগিতায় সৈয়দপুরের সমস্যা ও সমাধান শীর্ষক একটি গোলটেবিল আলোচনায়ও শহরের যানজট সমস্যার বিষয়টি গুরুত্ব পায়। সেখানে আলোচনায় অংশ নেয়া সকল বক্তা তাদের বক্তব্যে সৈয়দপুর শহরের যানজটের প্রসঙ্গতটি তুলে ধরেন।
ওই গোলটেবিল আলোচনায় অংশ নিয়ে সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিনুল হক মহসিন আক্ষেপ করে বলেন, এখানকার ট্রাফিক পুলিশ কর্মকর্তা শহরের যানজটের নিয়ন্ত্রণে চেয়ে মোটরসাইকেল আটক করে কাগজপত্র দেখার নাম করে অবৈধ পন্থায় নিজের পকেট ভারী করতে বেশি তৎপর দেখা যায়। 
 
উপরে