প্রকাশিত : ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ ১২:৫৪

সৈয়দপুরে শিশু তাসিনকে ফিরে পেলেন তার বাবা-মা

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:
সৈয়দপুরে শিশু তাসিনকে ফিরে পেলেন তার বাবা-মা

নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলওয়ে থানা পুলিশের বদৌলতে ঢাকা থেকে পথ ভুলে নীলফামারীতে চলে আসা আদরের শিশু সন্তানকে ফিরে পেলেন বাবা আরিফুজ্জামান। বুধবার সকালে থানার অফিসার ইনচার্জের (ওসি)  শিশু তাসিন তাজদীদকে (১১) তাঁর বাবার হাতে তুলে দেন। 

সৈয়দপুর রেলওয়ে থানা পুলিশ জানায়, ময়মনসিংহ সদরের হালুয়াঘাটের আরিফুজ্জামানের ছেলে তাসিন তাজদীদ। সে ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে থানা সংলগ্ন আল আরাফ ইন্টারন্যাশনাল হাফিজিয়া মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত। আর ওই মাদ্রাসা  থেকে মাত্র পাঁচশত গজ দূরে তাঁর মামার বাড়ি। মাদ্রাসা শিক্ষার্থী তাসিন তাজদীদ মাঝে মধ্যে গোসল  কিংবা  খাবারের  উদ্দেশ্যে পাশের মামা বাড়িতে যেত। ঘটনার দিন গতকাল মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে  মাদ্রাসা থেকে মামা বাড়ির উদ্দেশ্যে বের হয় সে।  কিন্তু এরপর সে পথ ভুলে আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনে চেপে গত ১৩  ফেব্রুয়ারি রাতে নীলফামারীর চিলাহাটিতে চলে আসে। ঢাকা-নীলফামারী রেলপথে চলাচলকারী আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঢাকা থেকে ছেড়ে সর্বশেষ গন্তব্য নীলফামারীর চিলাহাটি রেলওয়ে স্টেশন। এরপর সেখানে ট্রেনটির সব যাত্রী সাধারণ নেমে পড়েন। তাদের দেখাদেখি তাজদীদও  চিলাাহটি স্টেশনের প্লাটফর্মে নামে। কিন্তু অজানা জায়গায় নেমে ভয়ে কান্না-কাটি শুরু করে সে। এ দৃশ্য দেখতে পেরে নীলসাগর  ট্রেনের নিরাপত্তায় কর্তব্যরত রেলওয়ে পুলিশরা শিশুটিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এ সময় সে যে পথ ভুলে সেখানে এসে পড়েছে তা জানতে পারেন তারা (পুলিশ)। এরপর পুলিশ সদস্যরা ওই ট্রেনেই শিশু তাজদীদকে এনে সৈয়দপুর থানায় হস্তান্তর করেন।

সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ কে এম নূরুল ইসলাম জানান, শিশু তাজদীদ রাতেই তাঁর বাবার মোবাইল ফোন নম্বর বলতে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে তাঁর কাছ থেকে মোবাইল ফোন নম্বর পেয়ে তৎক্ষনাৎ বাবা আরিফুজ্জামানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। গতকাল বুধবার সকালে শিশুটির বাবা আরিফুজ্জামান সৈয়দপুর রেলওয়ে থানায় উপস্থিত হন। এ সময় মাদ্রাসা পড়ুয়া আদরের শিশু সন্তানকে কাছে পেয়ে খুশিতে তাঁর চোখে পানি চলে আসে। শিশু তাসিনকে ফিরে পাওয়ায় তিনি সৈয়দপুর  রেলওয়ে থানা পুলিশের আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সেই সঙ্গে এমন মানবিক কাজে  জন্য পুলিশ সদস্যদের প্রশংসাও করেন।  

শিশু তাসিন তাজদীদের বাবা মো.আরিফুজ্জামান জানান, দুপুরের মধ্যে বিষয়টি মাদ্রাসা থেকে তাসিন তাজদীদের নিখোঁজের বিষয়টি আমাকে  অবগত করা হয়। এরপর আমরা সম্ভাব্য সকল জায়গায় তাকে অনেক  খোঁজখুঁজি করি। কিন্তু কোথায় তাঁর হদিস মিলছিল না। এ অবস্থায় রাত আনুমানিক ১০টার দিকে সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার থেকে মোবাইল ফোনে আমার শিশু সন্তান  তাসিন তাজদীদ তাদের হেফাজতে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আর সংবাদ পেয়ে সকালে গিয়ে সৈয়দপুর রেলওয়ে থানায় হাজির হয়ে ছেলেকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা করি। 

সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ কে এম নূরুল ইসলাম জানান, পুলিশ জনগণের বন্ধু। আর তাদের জানমালের রক্ষা ও নিরাপত্তা দেয়ায় আমাদের প্রধান দায়িত্ব কর্তব্য। আজ বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে এমন একটি ভালো কাজ করতে পেয়ে নিজেকে অনেক বেশি খুশী ও ভালো লাগছে। 

উপরে