প্রকাশিত : ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ ১৩:০৪

সিলেটে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন ১ লাখ ৯ হাজার ৪১২ জনে

সিলেট প্রতিনিধি
সিলেটে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন ১ লাখ ৯ হাজার ৪১২ জনে

বিপুল-উৎসাহ-উদ্দীপনা মধ্য দিয়ে এ বছর সিলেট শিক্ষা বোর্ডের আওতায় এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন ১ লাখ ৯ হাজার ৪১২ জনে। নতুন বছর ২০২৪ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয় বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারী) থেকে। এবারের এসএসসি, দাখিল, এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ২০ লাখ ২৪ হাজার ১৯২ জন। গতবারের চেয়ে এবার পরীক্ষার্থী কমেছে প্রায় ৪৮ হাজার। শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দেশের ২৯ হাজার ৭৩৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এই পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। মোট ৩ হাজার ৭০০ কেন্দ্রে এই পরীক্ষা হচ্ছে।

সিলেট শিক্ষা বোর্ডে গত বছরের চেয়ে এবার ৯৯০ জন কম শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। ২০২৩ সালে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১ লাখ ১০ হাজার ৪০২ জন। এবার ১৫২টি কেন্দ্রে ৯৩৫টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। এ বছর পরীক্ষার ৩টি কেন্দ্র বাড়ানো হয়েছে আর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বেড়েছে ৪টি।

এবারের পরীক্ষার্থীর মধ্যে ছেলে ৪৫ হাজার ৬৬ জন এবং মেয়ে ৬৪ হাজার ৩৪৬ জন। গত বছর ছেলে শিক্ষার্থী ৪৫ হাজার ৫৯৮ জন এবং মেয়ে শিক্ষার্থী ছিলো ৬৪ হাজার ৮০৪ জন। এবারের পরীক্ষার্থীর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগের ২৪ হাজার ২১১ জন এর মধ্যে ছাত্র ১০ হাজার ৫১১ জন ও ছাত্রী ১৩ হাজার ৭০০ জন।

মানবিকে ৭৭ হাজার ৮১৩ জন এর মধ্যে ছাত্র ৩০ হাজার ৮৩৯ জন ও ছাত্রী ৪৬ হাজার ৯৭৪ জন। আর বাণিজ্য শাখায় ৭ হাজার ৩৮৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ছাত্র ৩ হাজার ৭১৬ জন ও ছাত্রী ৩ হাজার ৬৭২ জন।

সিলেট শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক অরুণ চন্দ্র পাল জানান, পরীক্ষা সুষ্ঠু, সুন্দর এবং নকলমুক্ত পরিবেশে সম্পন্ন করতে নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কেন্দ্র সচিব ছাড়া পরীক্ষা কেন্দ্রে অন্য কেউ মোবাইল ফোন বা অননুমোদিত ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবেন না। কেন্দ্র সচিব ছবি তোলা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধাবিহীন একটি সাধারণ (ফিচার)  ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। অননুমোদিত ফোন বা ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে জানানো হয়

এদিকে, সাধারণ শিক্ষা বোর্ড ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ১২ মার্চ। এ ছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষা  বোর্ডের লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ১৪ মার্চ। পরীক্ষা উপলক্ষে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে আগামী ১২ মার্চ পর্যন্ত দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরীক্ষার অন্য নিয়ম গুলো মোটামুটি আগের মতোই মানতে হবে।

 

উপরে