প্রকাশিত : ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ ১৮:৪৫

সকল ক্ষেত্রে বাংলা ভাষার ব্যবহার আরও বৃদ্ধি করতে হবে: এমপি মজনু

ষ্টাফ রিপোর্টার
সকল ক্ষেত্রে বাংলা ভাষার ব্যবহার আরও বৃদ্ধি করতে হবে: এমপি মজনু
বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মজিবর রহমান মজনু এমপি বলেছেন ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠার পর উর্দুকে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসেবে চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। বাংলাভাষী মানুষ এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু করে। ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বাংলা ভাষার দাবিতে শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশের গুলিতে সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, শফিকসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী শহীদ হন। তাদের এই আত্মত্যাগ বাংলা ভাষাকে পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি লাভে সহায়তা করে। 
 
তিনি আরোও বলেন ইতিহাসের পাতায় বাঙালি প্রথম ভাষার জন্য মৃত্যুবরণ করেছে। তাই ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি আমাদের সবার মাঝে চিরস্মরণীয় হয়ে আছে। এই দিনটি বাঙালি জাতি অনেক শ্রদ্ধা ও সম্মানের সাথে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে।ভাষা শহীদদের আদর্শ ধারণ করে আমাদের জীবনে বাংলা ভাষার ব্যবহার ও চর্চার প্রসার ঘটাতে হবে। 
 
২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগ এর আয়োজনে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভায় সভাপতি বক্তব্যে এসব কথা বলেছেন। 
 
 
আলোচনা সভায় প্রধান  আলোচক জেলা আওয়ামী লীগ  সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু এমপি বলেন ভাষা আন্দোলন বাঙালি জাতির আত্মসম্মান ও ঐক্যের প্রতীক। এই আন্দোলনের মাধ্যমে বাঙালিরা তাদের ভাষার প্রতি ভালোবাসা ও অধিকারের প্রমাণ দিয়েছে।১৯৯৯ সালে ইউনেস্কো ২১শে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। তিনি আরোও বলেন ভাষা শেখা ও শেখানোর মাধ্যমে বাংলা ভাষার প্রসার ঘটাতে হবে।বাংলা ভাষার সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে সমৃদ্ধ করতে হবে।এই দিনটি আমাদের মনে করিয়ে দেয় ভাষার জন্য ত্যাগ স্বীকারকারী শহীদদের প্রতি কৃতজ্ঞতা।
 
আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন টি জামান নিকেতা,অ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন, আবুল কালাম আজাদ, অ্যাডভোকেট মকবুল হোসেন মুকুল, এডভোকেট আমানুল্লাহ, প্রদীপ কুমার রায়, এ কে এম আসাদুর রহমান দুলু,অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন নবাব, অধ্যক্ষ শাহাদাত আলম ঝুনু,এডভোকেট সাইফুল ইসলাম, সুলতান মাহমুদ খান রনি, সেরিন আনোয়ার জর্জিস,এডভোকেট শফিকুল ইসলাম আক্কাস,নাসরিন রহমান সীমা,বীর মুক্তিযোদ্ধা আনিসুজ্জামান মিন্টু, মাশরাফি হিরো, আনোয়ার পারভেজ রুবন, রুহুল মুমিন তারিক,জহুরুল হক বুলবুল, খালিকুজ্জামান রাজা, আবু সেলিম, এম এ বাসেদ,আতিকুর রহমান দুলু, এডভোকেট নরেশ মুখার্জি, শহিদুল ইসলাম দুলু, অধ্যক্ষ শামসুল আলম জয়,অ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম নাফরু,তৌফিকুর রহমান বাপ্পি ভান্ডারী, রাহুল গাজী,সাইফুল ইসলাম বুলবুল,আবু সুফিয়ান শফিক,আবু ওবায়দুল হাসান ববি, মাহফুজুল ইসলাম রাজ,আলমগীর হোসেন স্বপন, আলতাফুর রহমান মাসুক,কামরুল হুদা উজ্জ্বল, গৌতম কুমার দাস, হেফাজত আর মিরা, আব্দুস সালাম,আলমগীর বাদসা,শুভাশিস পোদ্মার লিটন,আমিনুল ইসলাম ডাবলু,সাবরিনা সরকার পিংকি, রাকিব উদ্দিন সিজার, রাসেদুজ্জামান রাজন,সজীব সাহা ও আল মাহিদুল ইসলাম জয় প্রমুখ। জেলা আওয়ামীলীগ দপ্তর সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল রাজী জুয়েল এর পরিচালনায় জেলা আওয়ামীলীগ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে গৃহীত কর্মসূচির মধ্যে ছিলেন দলীয় ও জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাচ ধারণ, বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্প মাল্য অর্পণ, প্রভাত ফেরীসহ শহীদ মিনারের শ্রদ্ধা নিবেদন দলীয় কার্যালয়ের সামনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। 
উপরে