প্রকাশিত : ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ ২১:১৫

তরুণদের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও প্রযুক্তিতে রাশিয়ার সহযোগিতা আরও শক্তিশালী হবে

ষ্টাফ রিপোর্টার
তরুণদের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও প্রযুক্তিতে রাশিয়ার সহযোগিতা আরও শক্তিশালী হবে
রোসশোত্রুদনিচেস্তভো'র মস্কো হেড অফিসের ডেপুটি হেড পাভেল শেভতসভ বলেছেন, বাংলাদেশের তরুণদের শিক্ষা, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে রাশিয়ার সহযোগিতা ভবিষ্যতে আরও শক্তিশালী হবে। রাশিয়ায় উচ্চশিক্ষা গ্রহণে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের ক্রমবর্ধমান আগ্রহের কারণে, রাশিয়ান সরকার ধীরে ধীরে বৃত্তির সংখ্যা ১২৪-এ উন্নীত করেছে, আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে এই সংখ্যা ভবিষ্যতে আরও বাড়বে, এবং রোসশোত্রুদনিচেস্তভো'র বাংলাদেশ প্রতিনিধি কার্যালয় ঢাকার রাশিয়ান হাউস বাংলাদেশের যেকোনো উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের প্রক্রিয়ায় জন্য যথেষ্ট সক্রিয়। 
 
"বাংলাদেশের শিক্ষাগত, বৈজ্ঞানিক ও যুব কর্মকাণ্ডে রসোট্রুডনিচেস্টভোর ভূমিকা" শীর্ষক একটি সংবাদ সম্মেলন তিনি এই কথাগুলো বলেন। ঢাকাস্থ রাশিয়ান হাউস বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর, রাশিয়ান ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি উইথ বাংলাদেশ এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক একাডেমির সহযোগিতায় মঙ্গলবার এই আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়। 
 
বিশ্বব্যাপী রাশিয়ান হাউসের মস্কোর প্রধান কার্যালয় রোসশোত্রুদনিচেস্তভো'র ডেপুটি হেড, পাভেল শেভ্ত্সভ্ এবং বাংলাদেশি মিডিয়া প্রতিনিধিদের সাথে অনুষ্ঠিত হয়। 
 
শুরুতে, ঢাকায় রাশিয়ান হাউসের পরিচালক পাভেল দভইচেনকভ্ তার স্বাগত বক্তব্যে আরো বলেন, ১৯৭৪ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে, ঢাকায় রাশিয়ান হাউস সর্বদা বাংলাদেশের তরুণদের জন্য শিক্ষা ও সংস্কৃতিসহ প্রতিটি কর্মকাণ্ডে সক্রিয় রয়েছে। মস্কোতে রোসশোত্রুদনিচেস্তভো'র প্রধান কার্যালয় দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন প্রোগ্রামের মাধ্যমে, এছাড়াও বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষার জন্য রাশিয়ায় রুশ সরকারের বৃত্তির সুযোগ সংক্রান্ত কার্যক্রমের পাশাপাশি রুশ ভাষা কোর্স উন্নয়নের কাজ। সংবাদ সম্মেলনে পাভেল শেভ্ত্সভ্ আরো বলেন, রাশিয়া বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ। বর্তমান ডিজিটাল বিশ্বে বাংলাদেশের প্রতিযোগিতার জন্য দক্ষ জনশক্তি খুবই প্রয়োজন। তিনি রাশিয়ান সরকারের নিউ জেনারেশন এবং ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ ফেস্টিভ্যাল ২০২৪-এ আগ্রহের জন্য বাংলাদেশের যুব প্রতিনিধিদের ধন্যবাদ জানান এবং তাদের রাশিয়ায় স্বাগত জানান। তিনি গণমাধ্যম প্রতিনিধি ও অন্যান্য অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের বিস্তারিত উত্তর দেন।
 
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ। সংবাদ সম্মেলনের পর বাংলাদেশি শিল্পীরা অনুপ্রেরণামূলক দেশাত্মবোধক গান ও নৃত্য পরিবেশন করেন। 
উপরে