প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল, ২০২৪ ১৩:৪৯

তীব্র দাবদাহে আকবরিয়ার দইয়ের চাহিদা বেড়েছে

প্রেস বিজ্ঞপ্তি
তীব্র দাবদাহে আকবরিয়ার দইয়ের চাহিদা বেড়েছে

তীব্র দাবদাহে বিপর্যস্ত জনজীবন। বিশেষ করে খেটে খাওয়া মানুষের কষ্টের সীমা নেই। বগুড়াসহ সারা দেশের মানুষ ভুগছে গরমে। দিন যাচ্ছে তাপমাত্রা আরো বাড়ছে। ঘর হতে বের হওয়া দায়। কোথাও স্বস্তি নেই। দিনে যারা ঘরের বাইরে কাজ করে, তাদের যেন একবারেই কাহিল অবস্থা। সারাদেশে তাপদাহে পুড়ছে মানুষ। প্রচণ্ড গরমে তৃষ্ণা মেটাতে বগুড়ায় আকবরিয়ার দইয়ের চাহিদা বেড়েছে। দই বগুড়াবাসীর ঐতিহ্য। কান্তি দূর করতে দইয়ের ঘোল খুব উপকারী ও পরিবারের সবার পছন্দের। গ্রীষ্মকালের শীতল খাবার হিসেবে এখনও শ্রেষ্ঠত্ব দখল করে আছে ঐতিহ্যবাহি আকবরিয়ার দই। টক দইয়ের পাশাপাশি মিষ্টি দই শুরু থেকেই চাহিদার শীর্ষে রয়েছে। দই শরীরকে শীতল রাখা, হজমে কাজ করে বলে দইয়ের চাহিদা বেড়ে যায়।

সারা পৃথিবীর মানুষের খাদ্য তালিকায় স্থান করে নিয়েছে দই। আর বাঙালি সমাজে দইয়ের কদর যথেষ্ট। টক-মিষ্টি উভয় দইই খেতে ভালোবাসে বাংলার মানুষ। প্রধানত ভারতীয় উপমহাদেশের পূর্বাঞ্চল ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশে মিষ্টি দই এর কদর পৃথিবীজুড়ে। এর মধ্যে কোনো কোনো জায়গার দইয়ে রয়েছে আলাদা বিশেষত্ব।

বাংলাদেশে দই উৎপাদনের জন্য বিখ্যাত বগুড়া। পাকিস্তানের আইয়ুব খান বগুড়ার দইয়ের প্রেমে পড়েছিলেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রিটেনের প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বদের মন জয় করতে তিনি বগুড়ার দই পাঠান। লোকে বলে, ষাটের দশকে ইংল্যান্ডের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথও বগুড়ার দই খেয়ে মুগ্ধ হয়েছিলেন।

অবশ্য বগুড়ায় মিষ্টি দই ছাড়াও সাদা টক দইও তৈরি হয়ে থাকে। বগুড়ার মানুষ এখনও মিষ্টি দই বলতে অজ্ঞান। দই না খেলে ওই জেলায় ভ্রমণ সম্পূর্ণ হয় না। প্রবীণ লোকেরা বলে থাকেন, এখানকার দই শিল্পের ইতিহাস প্রায় ২০০ বছরের পুরোনো। 

দই কিনতে আসা শহরের লতিফপুর এলাকার বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রী রোকসানা আকতার রুকু জানান, তৃষ্ণা মেটাতে দইয়ের স্বাদের বিকল্প নেই। পরিবারের সবার কাছে আকবরিয়ার দই সবচেয়ে প্রিয়। দই দ্রুত শরীরকে ঠান্ডা করে  ও তৃষ্ণা মেটাতে খুব কার্যকরী এবং হজমে ভালো কাজ দেয়। আকবরিয়া হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট এর দই স্বাদে মানে অনন্য হওয়ায় এর কদর রয়েছে।

আকবরিয়া লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসেন আলী দুলাল জানান, গরমে প্রচুর চাহিদার সৃষ্টি হয় দইয়ের, চাহিদার কারণে বগুড়ার বেশ কয়েকটি এলাকায় আকবরিয়ার শাখা খোলা হয়েছে। যেন ক্রেতারা ভিড় এড়িয়ে সহজে কেনাকাটা করতে পারে। দতা ছাড়া ভালো মানের দই তৈরি করা যায় না। দই তৈরির মূল উপকরণ হলো ভাল মানের দুধ। দুধ যত ভালো মানের হবে দই তত স্বাদের হবে। দই তৈরির কাজে বিশেষ দ কারিগর না হলে উপকরণ নষ্ট হয়ে যায়।

আকবরিয়া লিমিটেড এর চেয়ারম্যান হাসান আলী আলাল জানান, আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি ভোক্তাদের চাহিদা মেটাতে। ভালোমানের দই পরিবেশন আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।  এই দায়িত্ব আমরা কঠোরভাবে পালন করে যাচ্ছি। গুণগত মান ভালো হওয়ায় প্রতি বছর আকবরিয়ার দইয়ের চাহিদা থাকে প্রচুর। তৃষ্ণা মেটাতে দই সব বয়সি মানুষের কাছে প্রিয়।

 

উপরে