logo
আপডেট : ২৩ জুন, ২০২২ ১১:৫৪
সব ষড়যন্ত্র ছিন্ন করে সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় আ.লীগের
অনলাইন ডেস্ক

সব ষড়যন্ত্র ছিন্ন করে সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় আ.লীগের

২০৪১ সাল নাগাদ সমস্ত ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, আওয়ামী লীগ সরকারের নেতৃত্বে সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে আমরা সক্ষম হব বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী এবং দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ড হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, অতীতেও সমস্ত ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে,জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ  এগিয়ে গেছে।

এখনও জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) আওয়ামী লীগের ৭৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ধানমন্ডি বত্রিশ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিক দের সামনে এ মন্তব্য করেন তিনি।

আওয়ামী লীগের ইতিহাস প্রকৃত পক্ষে বাঙালি জাতির ইতিহাস উল্লেখ করে ড.হাছান মাহমুদ বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর হাত ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়।জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ খাদ্যের ঘাটতির দেশ থেকে খাদ্য উর্দ্বত্তের দেশে পরিণত হয়।বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, আওয়ামী লীগ সরকারের নেতৃত্বে বিশ্ব বেনিয়াদের বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে পদ্মা সেতু নির্মাণ হয়েছে।

স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি এখনো সারাদেশে আস্ফালন করে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন এই অপশক্তির প্রধান পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে বিএনপি। বিএনপি জামায়াত এই অপশক্তি নিয়ে রাজনীতি করছে।দেশের উন্নয়ন অগ্রগতির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।

এর আগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথমে সরকারের পক্ষে এবং পরে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন শেখ হাসিনা।

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ শাসনের অবসান এবং ভ্রান্ত দ্বি-জাতি তত্তের ভিত্তিতে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠা লাভ করে । অতঃপর বাঙালি জাতির উপর পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর অত্যাচার, নির্যাতন, চরম অবেহলা ও দুঃশাসনে নিষ্পেষিত বাংলার জনগণের মুক্তি ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন প্রতিষ্ঠিত হয় আওয়ামী লীগ। জন্মলগ্নে এই সংগঠনের নাম ছিল ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ’।

১৯৪৯ সালের ২৩ ও ২৪ জুন ঢাকার কেএম দাস লেনে অবস্থিত ঐতিহাসিক ‘রোজ গার্ডেন’ প্রাঙ্গণে জননেতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর অনুসারি মুসলিম লীগের প্রগতিশীল কর্মীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ’ নামে পাকিস্তানের প্রথম বিরোধী দলের আত্মপ্রকাশ ঘটে।

সংগঠনটির প্রথম কমিটিতে মওলানা ভাসানী সভাপতি ও শামসুল হক সাধারণ সম্পাদক এবং জেলে থাকা অবস্থায় যুগ্ম-সম্পাদক নির্বাচিত হন শেখ মুজিবুর রহমান।