logo
আপডেট : ২৩ জুন, ২০২২ ১১:৫৮
হাজার ছাড়িয়েছে আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে মৃত্যু
অনলাইন ডেস্ক

হাজার ছাড়িয়েছে আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে মৃত্যু

আন্তর্জাতিক মিডিয়া বিশেষজ্ঞদের বরাত দিয়ে যুদ্ধের ক্ষত বহনকারী আফগানিস্তানের ভূমিকম্পকে কয়েক দশকের মধ্যে সবচয়ে ভয়াবহ বলে উল্লেখ করেছে, যাতে মৃত্যুর সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে এবং এখনো বহু মানুষ ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়ে আছে। বিশ্ব থেকে প্রায়-বিচ্ছিন্ন আফগানিস্তানের তালেবান সরকার সাহায্যের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আবেদন জানিয়েছে।

আফগানিস্তানের এলাকায় ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালালেও ভূমিকম্পে প্রকম্পিত হয় আফগানিস্তান-পাকিস্তান সীমান্ত। পাথরস্তম্ভ সদৃশ্য পাহাড় এই সীমান্তরেখা প্রাকৃতিকভাবেই দুর্গম আর ভূমিকম্প-প্রবণ।

সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আফগানিস্তানের পাকটিকা প্রদেশ আর তাতে এখন পর্যন্ত ১০০০ জন নিহত হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। ভূমিকম্পে প্রায় ৫০০ কিলোমিটার জুড়ে তীব্র কম্পন অনুভূত হয় বলে জানা গেছে।

আফগানিস্তানের এক প্রশাসনিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। আফগানিস্তানের পূর্বে অবস্থিত পাকটিকা অঞ্চলে ভূমিকম্পের প্রভাব সবচেয়ে বেশি হলেও নানগরহর নাম গ্রাম্য এলাকায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে। কাঁচা বাড়িঘরের দুর্বল কাঠামো ভূমিকম্প সহ্য করতে না পেরে প্রায়-পুরোটাই ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে।

খবরে জানানো হয়, ভূমিকম্পের উৎসস্থল আফগানিস্তানের খোস্ত শহর থেকে ৪৪ কিলোমিটার দূরে। মাটির নীচে ৫১ কিলোমিটার গভীরে কম্পন হয়। রিখটার স্কেলে তার মাত্রা ছিল ৬.১। ভূমধ্যসাগরীয় ভূমিকম্প বিষয়ক সংস্থা জানিয়েছে, প্রায় ৫০০ কিলোমিটার জুড়ে কম্পন অনুভূত হয়েছে।

পাকিস্তানের গণমাধ্যম জানিয়েছে, রাজধানী ইসলামাবাদেও হাল্কা কম্পন হয়েছে। তবে লাহোর, মুলতান, কোয়েটায় ভূমিকম্পের তীব্রতা ছিল বেশি। কম্পন অনুভূত হওয়ার পর সাধারণ মানুষ রাস্তায় নেমে পড়েন। তবে পাকিস্তান থেকে এখনো পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতির খবর আসেনি। গত শুক্রবারই্ও ওই অঞ্চলে আরেকটি ভূমিকম্প হয়েছিল। রিখটার স্কেলে যার তীব্রতা ছিল পাঁচ।

আফগানিস্তানে ভূমিকম্পের পর সরকারের মুখপাত্র বিলাল কারিমি বলেন, দুঃখজনকভাবে গতরাতে পাকটিকা প্রদেশে ভয়াবহ ভূমিকম্প হয়েছে। এতে কয়েকশ মানুষ নিহত হয়েছে এবং বহু বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে গেছে। আমরা সকল সাহায্য সংস্থার কাছে সেখানে সাহায্য পাঠানোর আবেদন জানাচ্ছি।