logo
আপডেট : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৩:০৩
মানব উন্নয়ন সূচক : ভারত-পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ
অনলাইন ডেস্ক

মানব উন্নয়ন সূচক : ভারত-পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ

জাতিসংঘের মানব উন্নয়ন সূচকে ০.৬৬১ মান নিয়ে এবার বাংলাদেশ ১২৯তম অবস্থানে রয়েছে। আগেরবারের চেয়ে চার ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) নতুন এক প্রতিবেদন বলছে, দেশে প্রত্যাশিত গড় আয়ু এখন ৭২.৪ বছর। শিক্ষার পেছনে ব্যয়িত সময় ১২.৪ বছর এবং পিপিপি বা পারচেজিং পাওয়ার প্যারিটি বিবেচনায় মাথাপিছু আয় (জিএনআই) পাঁচ হাজার ৪৭২ ডলার।

ইউএনডিপির মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন ২০২১-২০২২ ‘অনিশ্চিত সময়, অস্থির জীবন : একটি পরিবর্তনশীল বিশ্বে ভবিষ্যতের রূপান্তর’-এ উঠে এসেছে তথ্যগুলো।

প্রতিবেদনে উল্লিখিত সূচকে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের চেয়ে পিছিয়ে রয়েছে ভারত, নেপাল, মিয়ানমার ও পাকিস্তান। তবে এগিয়ে রয়েছে মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা ও ভুটান। এবার মোট ১৯১টি দেশকে নিয়ে এই প্রতিবেদন করা হয়।

ইউএনডিপির ২০২০ সালের শেষে প্রকাশিত মানব উন্নয়ন সূচক প্রতিবেদন ‘দ্য নেক্সট ফ্রন্টিয়ার : হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড দ্য অ্যানথ্রোপোসিন’-এ বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৩৩তম। সেবার দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে ছিল ভারত, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা ও ভুটান।

চলতি বছর ০.৯৬২ মান নিয়ে এই সূচকের শীর্ষে রয়েছে সুইজারল্যান্ড। দেশটিতে প্রত্যাশিত গড় আয়ু ৮৪ বছর, শিক্ষার পেছনে ব্যয়িত সময় সাড়ে ১৬ বছর এবং পিপিপি বিবেচনায় গড় মাথাপিছু আয় ৬৬ হাজার ডলার।

অন্যদিকে ০.৩৮৫ মান নিয়ে এই সূচকের তলানিতে রয়েছে দক্ষিণ সুদান। দেশটির প্রত্যাশিত গড় আয়ু ৫৫। শিক্ষার পেছনে ব্যয়িত সময় সাড়ে পাঁচ বছর এবং পিপিপি বিবেচনায় গড় মাথাপিছু আয় ৭৬৮ ডলার।

এবারের মানব উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের অবস্থান ১৩২তম, নেপালের ১৪৩তম, মিয়ানমার ১৪৯তম এবং পাকিস্তানের ১৬১তম। অন্যদিকে শ্রীলঙ্কার অবস্থান ৭৩তম, মালদ্বীপের ৯০তম এবং ভুটানের ১২৭তম।

জানা গেছে, এ বছরের সূচক ২০২১ সালের তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে তৈরি।

জাতিসংঘের তৈরি এই প্রতিবেদনটি বলছে, করোনা মহামারির প্রাদুর্ভাবের পর থেকেই বিশ্বব্যাপী মানুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ু, শিক্ষা এবং অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি কমতে শুরু করেছে। কয়েক দশক ধরে এই খাতগুলোতে উন্নয়ন অর্জিত হলেও, দুই বছর ধরে বৈশ্বিকভাবেই তা পড়তির দিকে। এই পতনে কভিড-১৯-এর পাশাপাশি ভূমিকা রেখেছে ইউক্রেন যুদ্ধ ও জলবায়ু পরিবর্তন।

‘২০২২ সালের পরিস্থিতি ভয়াবহ’ উল্লেখ করে গবেষণা প্রতিবেদনটির গবেষকদের একজন আখিম স্টাইনার জানান, বিশ্বের ৮০টিরও বেশি দেশ নিজেদের রাষ্ট্রীয় ঋণ পরিশোধ নিয়ে সমস্যার সম্মুখীন। তিনি বলেন, ‘অনেক দেশ গুরুতর সংকট থেকে একধাপ দূরে রয়েছে। আমরা ব্যাপক প্রতিবন্ধকতা দেখতে পাচ্ছি, যা হয়তো আগামী কয়েক বছর ধরে চলবে। ’ সূত্র : বিবিসি, ইউএনডিপি ডটঅর্গ।