logo
আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২১:৪৪
মিশরে টিভি উপস্থাপিকাকে হত্যা, বিচারক স্বামীর মৃত্যুদণ্ড দিলেন মুফতি
অনলাইন ডেস্ক

মিশরে টিভি উপস্থাপিকাকে হত্যা, বিচারক স্বামীর মৃত্যুদণ্ড দিলেন মুফতি

টেলিভিশন উপস্থাপিকা স্ত্রীকে হত্যার দায়ে বিচারক আয়মান হ্যাগাগ এবং তার সহযোগীর মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন করেছে মিশরের গ্র্যান্ড মুফতি। রবিবার দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এ তথ্য জানিয়েছে। খবর আল অ্যারাবিয়ার।

আগস্টে মিশরের ফৌজদারি আদালত তাদের দোষী সাব্যস্ত করেছিল।

এখন দেশটির শীর্ষ ধর্মীয় কর্তৃপক্ষ অনুমোদন করার পর হ্যাগাগ এবং ব্যবসায়ী হুসেইন আল-গারাবলিকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে।   

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুজন জুন মাসে হ্যাগাগের স্ত্রী শায়মা গামালকে হত্যা করার জন্য দোষী সাব্যস্ত হয়েছিল। শায়মা মিশরের গিজা শহরভিত্তীক এলটিসি টিভিতে একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করতেন।

আল-গারাবলির কাছ থেকে তথ্য পাওয়ার পর শায়মার লাশ একটি ভিলায় পাওয়া যায়। তিনি অপরাধে তার ভূমিকার কথা স্বীকার করেছিলেন।

এই ঘটনার তিন সপ্তাহ আগে হ্যাগাগ  জানিয়েছিলেন তার স্ত্রী নিখোঁজ।

আদালতের বিবৃতি অনুসারে, বাস্তবে বিচারক হ্যাগাগ তার স্ত্রীকে সেই প্রত্যন্ত ভিলায় যাওয়ার জন্য প্রলুব্ধ করেছিলেন। এবং সেখানে তিনি ইতিমধ্যে একটি কবর খনন করে রেখেছিলেন। এর পর আল-গারাবলির সহায়তায় তিনি শায়মার মাথায় আঘাত করেন এবং শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। তারা মৃতদেহটি কবরে রেখে তার ওপর রাসায়নিক উপাদান ঢেলে দেয়, যাতে ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা লাশ সনাক্ত করতে না পারে।

হ্যাগাগ দাবি করেছেন, তার স্ত্রী তাকে ব্ল্যাকমেইল করেছিলেন। এবং তাকে ছুরি দিয়ে আঘাত করার পর আত্মরক্ষার জন্য তিনি তার স্ত্রীকে হত্যা করেছেন।

কিন্তু বিচারকরা উল্লেখ করেছেন, অপরাধের স্থানে কোনো ছুরি পাওয়া যায়নি এবং হ্যাগাগ তার স্বীকারোক্তিতে আত্মরক্ষার কথা বলেননি। অন্যদিকে আল-গারাবলির স্বীকারোক্তিতেও হ্যাগাগের আত্মরক্ষার কথা পাওয়া যায়নি।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা চাইলে ৬০ দিনের মধ্যে মিশরের আদালতে আপিল করতে পারবেন বলে জানা গেছে।

এটি এখন পর্যন্ত মিশরের জনপ্রিয় নারীদের হত্যাকাণ্ডের সর্বশেষ ঘটনা। এ বছরের ১৯ জুন ২১ বছর বয়সী মিসরীয় শিক্ষার্থী নায়েরা আশরাফকে বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা করেছিলেন এক ব্যক্তি এবং আরেকজন ২১ বছর বয়সী সালমা বাহজাত সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য খুন হয়েছিলেন।  

সূত্র : আল অ্যারাবিয়া।