logo
আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৫:৪৬
পার্বতীপুরে ভুয়া এসএসসি পরিক্ষার্থী আটক
পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ

পার্বতীপুরে ভুয়া এসএসসি পরিক্ষার্থী আটক

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে চলতি এস এস সি পরীক্ষার ২য় দিনে বড় ভাইয়ের পরীক্ষা ছোট ভাই দিতে গিয়ে ধরা পড়েছে। ভূয়া এই পরীক্ষার্থীকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।

জানা গেছে,দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার ২ নম্বর  মন্মথপুর ইউনিয়নের গোবিন্দপুর বাজারের আকরাম হোসেনের বড় ছেলে মারুফ বাদশা (১৭) বড় ভাই আরাফাত হোসেনের এসএসসি ২০২২ এর পরীক্ষা ১ ম দিনের পর আবরো ২ য় দিন প্রক্সি দিতে গিয়ে হাতে নাতে ধরা পড়ে। মন্মথপুর কো-অপারেটিভ উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র যশাই উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে মোঃ আরাফাত হোসেন এর পরীক্ষা কলেজ পড়ুয়া ছোট ভাই মারুফ বাদশা দিতে গিয়ে পরিদর্শক জাহাঙ্গীর আলম এর কাছে ধরা পড়ে।
যার রোল- ৭৫৭০৮২ রেজিষ্ট্রেশন- ১৭১৭৭৫৬৬৯৩ কেন্দ্র - ৭৪০ পার্বতীপুর জি।

বাদশা ভুয়া পরীক্ষার্থী কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার জন্য হল সচিব  মন্মথপুর কো-অপারেটিভ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে অবহিত করলে তিনি বিষয় নিশ্চিত করেন। এর পর হল সচিব ভুয়া পরীক্ষার্থীকে ততক্ষনাত পুলিশে সোপর্দ করেন।

জানা যায়,গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরে পরীক্ষা পরিদর্শন মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ভুয়া পরীক্ষার্থী বাদশাকে একাধিক বার জিজ্ঞাসা করে সন্দেহ বেড়ে গেলে খাতা ও প্রশ্নপত্র না দিলে ভুয়া পরীক্ষার্থী বাদশাকে মানবতা দেখিয়ে পাঠিয়ে দেয়। ভুয়া এই শিক্ষার্থী কেন্দ্রের বাহিরে গিয়ে পুনরায় সু-কৌশলে পরীক্ষা কক্ষে ঢুকে দাবি করে যে সে ভুয়া নয়। সে পরীক্ষা না দিয়ে কোন ক্রমে পরীক্ষার হল ত্যাগ করবেনা। তার এই চ্যালেঞ্জে পরিদর্শক খানিকটা বিচলিত হয়ে পরীক্ষার বিলম্বের কথা ভেবে ততক্ষণাত ছুটে যান হল সচিবেে কাছে। হল সচিব এই বিতর্কিত বিষয়টির কারনে তিনি নিজে খাতা প্রশ্ন নিয়ে এসে ভুয়া এই পরীক্ষার্থীকে পূনরায় সতর্ক করলেও সে মানতে না চাইলে প্রবেশ পত্রের ছবি থেকে বহুবার তার চেহারার সাথে মিল খোজার চেষ্টা করে সন্দেহ আরো বেড়ে গেলেও পরীক্ষার্থী ক্ষতি কথা বিবেনা করে পরীক্ষার সুযোগ দিয়ে সেই ছাত্রের স্কুলের প্রধান শিক্ষককে অবহিতি পরিচয় নিশ্চিত করবার জন্য ডেকে পাঠান। প্রধান শিক্ষক হল সচিবকে ভুয়া ছাত্র নিশ্চিত করার পর অনুরোধ করেন তার বড় কোন ক্ষতি না করার জন্য। সচিব মানবতা দেখিয়ে তাকে ভুল স্বীকার করার কথা বললে তা না করে বলে যে আমি ১ ম পরিক্ষা যখন দিয়েছি বাকি সবগুলি পরীক্ষা দেব। তখন বাধ্য হন পুলিশে সোপর্দ করতে।

এ ব্যাপারে পার্বতীপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানা গেছে।