প্রকাশিত : ১৮ নভেম্বর, ২০২৩ ১২:১৯

গাজায় দৈনিক দুই ট্রাক জ্বালানি প্রবেশের অনুমতি দেবে ইসরায়েল

অনলাইন ডেস্ক
গাজায় দৈনিক দুই ট্রাক জ্বালানি প্রবেশের অনুমতি দেবে ইসরায়েল

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চাপে গাজা উপত্যকায় দৈনিক দুই ট্রাক জ্বালানি প্রবেশের অনুমতি দেবে ইসরায়েল। এতে প্রতি দুইদিনে প্রায় ১ লাখ ৪০ হাজার লিটার জ্বালানি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের একজন কর্মকর্তা।

এসব জ্বালানি পানি ও স্যানিটেশন সরবরাহের কাজে ব্যবহার করা হবে। এছাড়া, জ্বালানির অভাবে বন্ধ হয়ে যাওয়া মোবাইল ফোন এবং ইন্টারনেট পরিষেবার চালুর কাজেও ব্যবহার করা হবে

শনিবার ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

শুক্রবার গাজার যোগাযোগ সরবরাহকারী সংস্থা জানায়, ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের জন্য জাতিসংঘের সংস্থা উনরওয়া মাধ্যমে কিছু জ্বালানি পাওয়ার পর তাদের পরিষেবাগুলো আবার চালু হয়।

মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, এই জ্বালানি চুক্তির মাধ্যমে ওয়াশিংটন ইসরায়েলের ওপর যথেষ্ট চাপ প্রয়োগ করেছে।

এই চুক্তিটি গত সপ্তাহে দুই দেশ নীতিগতভাবে সম্মত হয়েছিল। কর্মকর্তা জানান, দুটি কারণে ইসরায়েল বিলম্বিত করছিল। ইসরায়েলি কর্মকর্তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে বলেছিলেন দক্ষিণ গাজায় জ্বালানি আসলে শেষ হয়নি। তারা অপেক্ষা করতে চেয়েছিল এবং প্রথমে জিম্মি চুক্তিতে আলোচনা করার চেষ্টা করেছিল।

বৃহস্পতিবার জ্বালানির অভাবের কারণে উনরওয়া তার সমস্ত কার্যক্রম স্থগিত করতে হতে পারে সংস্থাটির প্রধান সতর্ক করে দিয়েছিলেন।

তার সর্বশেষ পরিস্থিতি প্রতিবেদনে, সংস্থাটি বলেছে মৌলিক মানবিক কার্যক্রমের জন্য প্রতিদিন ১ লাখ ৬০ হাজার লিটার জ্বালানির প্রয়োজন।

এর আগে, একজন ইসরায়েলি কর্মকর্তা বলেছিলেন, হামাসের কাছে না পৌঁছানোর শর্তে নতুন জ্বালানি ভাতা রাফাহ ক্রসিংয়ের মাধ্যমে দক্ষিণ গাজা উপত্যকার বেসামরিক জনগণের কাছে জাতিসংঘের মাধ্যমে আনা হবে।

ইসরায়েলি কর্মকর্তা বলেছেন, এসব জ্বালানি পানি, এই অঞ্চলে মহামারীর প্রাদুর্ভাব রোধ করতে পয়ঃনিষ্কাশন এবং স্যানিটেশন ব্যবস্থাকে সহায়তা দেবে।

আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বারবার গাজা উপত্যকায় উদ্ভূত মানবিক পরিস্থিতি নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এর আগে গাজায় রোগের বিস্তারের "উদ্বেগজনক প্রবণতা" সম্পর্কে সতর্ক করেছে। যেখানে জ্বালানির অভাব এবং ইসরায়েলি বোমাবর্ষণ স্বাস্থ্যসেবা এবং স্যানিটেশন সুবিধাগুলিকে মারাত্মকভাবে ব্যাহত করেছে।

শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) ফিলিস্তিন অঞ্চলে ডব্লিউএইচওর প্রতিনিধি রিচার্ড পিপারকর্ন বলেছেন, ৭০ হাজারের বেশি তীব্র শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ এবং ৪৪ হাজারের বেশি ডায়রিয়ার ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে।

গাজায় ছিটমহলের ডিস্যালিনেশন প্ল্যান্ট চালানো, বাড়িঘর ও হাসপাতালে বিদ্যুৎ সরবরাহ এবং স্যানিটেশন, পরিবহন এবং যোগাযোগ অবকাঠামোর জন্য জ্বালানি প্রয়োজন। এটি অঞ্চলের চারপাশে সাহায্য বিতরণের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ।

হামাস জ্বালানি চুরি করতে পারে এমন অজুহাতে ইসরায়েল গাজায় জ্বালানি প্রবেশে বাধা দিচ্ছে।

সর্বশেষ যুদ্ধের আগে ইসরায়েল গাজার সিংহভাগ বিদ্যুত সরবরাহ করেছিল এবং কিছু ছিটমহলের একমাত্র বিদ্যুৎ কেন্দ্র দ্বারা উত্পাদিত হয়েছিল যা আর কাজ করছে না।

এদিকে, রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, পশ্চিম তীরের নাবলুস শহরের বালাতা শরণার্থী শিবিরের একটি ভবনে ইসরায়েলি বিমান হামলায় অন্তত পাঁচ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন ইসরায়েলকে বলেছেন, "পশ্চিম তীরে উত্তেজনা কমাতে, বসতি স্থাপনকারী চরমপন্থী সহিংসতার ক্রমবর্ধমান মাত্রার মোকাবিলা করার জন্য" জরুরি পদক্ষেপ নিতে।

ফিলিস্তিনি ছিটমহলে হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মতে, ইসরায়েলের হামলায় এই অঞ্চলে কমপক্ষে ১২ হাজার মানুষ নিহত হয়েছে।

উপরে