প্রকাশিত : ৪ জানুয়ারী, ২০২২ ১৪:৪৯

মেয়র-প্রতিমন্ত্রীর দ্বন্দ্বে কাউন্সিলরের সম্মানী কর্তন

অনলাইন ডেস্ক
মেয়র-প্রতিমন্ত্রীর দ্বন্দ্বে কাউন্সিলরের সম্মানী কর্তন

দ্বন্দ্ব বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর সঙ্গে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীমের। কিন্তু সম্মানী কাটা পড়ছে বিসিসির ৯ কাউন্সিলরের। গত রবিবার তাঁদের মধ্যে সাতজন মেয়রকে আইনি নোটিশও দিয়েছেন। নোটিশে মেয়রের বিরুদ্ধে এককভাবে করপোরেশন চালানোর অভিযোগও তোলা হয়।

তবে বিসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ ফারুক হোসেন বলছেন, বিল-ভাউচার জমা না দেওয়ায় এই কাউন্সিলরদের সম্মানী দেওয়া হয়নি। কাউন্সিলরদের অভিযোগ, মেয়র-প্রতিমন্ত্রীর দ্বন্দ্বের জেরে তাঁরা দুই মাস ধরে পুরো সম্মানী পাচ্ছেন না। নোটিশদাতাদের মধ্যে কয়েকজন প্রতিমন্ত্রীর লোক হিসেবে পরিচিত। 

দলীয় সূত্র জানায়, সাদিক আব্দুল্লাহ ও জাহিদ ফারুকের মধ্যে দ্বন্দ্বের শুরু বরিশাল সিটি মেয়র পদের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে। জাহিদ ফারুক বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। মনোনয়ন দৌড়ে তিনি হেরে যান। দলীয় মনোনয়ন পেয়ে মেয়র হন সাদিক আব্দুল্লাহ। পরবর্তী সময়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাহিদ ফারুক বরিশাল সদর আসনে দলীয় মনোনয়ন পান এবং ভোটে জিতে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বও পান। সেই থেকে দ্বন্দ্বের সূত্রপাত।

গত বছরের ৮ আগস্ট প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক দুস্থদের মধ্যে বিতরণের জন্য প্রত্যেক কাউন্সিলরকে ৬০০ ব্যাগ করে খাদ্য সহায়তা দেন। মেয়র রুষ্ট হতে পারেন, এ কারণে বেশির ভাগ কাউন্সিলর সেই ত্রাণ বিতরণ করেননি বলে অভিযোগ আছে। ছয়-সাতজন কাউন্সিলর নিজ ওয়ার্ডে ওই সামগ্রীগুলো বিতরণ করেন। এতে দুজনের বিরোধ আবার চাঙ্গা হয় বলে জানান কাউন্সিলররা। সর্বশেষ জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কম্পাউন্ডে প্রতিমন্ত্রীর সাঁটানো ব্যানার অপসারণ নিয়ে ১৮ আগস্ট প্রশাসনের লোকজনের সঙ্গে মেয়রের অনুসারী দলীয় নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এরপর দুই নেতার বিরোধ প্রকাশ্য আলোচনায় আসে।

রবিবার দুপুরে বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য আজাদ রহমানের মাধ্যমে সিটি করপোরেশনের মেয়র, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সচিবকে আইনি নোটিশ দেন সাত কাউন্সিলর। নোটিশদাতা সাত কাউন্সিলর হলেন বিসিসির ১ নম্বর ওয়ার্ডের আমির হোসেন বিশ্বাস, ৪ নম্বর ওয়ার্ডের তৌহিদুল ইসলাম বাদশা, ২০ নম্বর ওয়ার্ডের জিয়াউর রহমান বিপ্লব, ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের এনামুল হক বাহার, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের শরীফ মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের হুমায়ন কবির ও ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের ফরিদ আহমেদ।

নোটিশে আইনজীবী আজাদ রহমান উল্লেখ করেন, সব কাউন্সিলরকে ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত ৪৩ হাজার ৫০০ টাকা হারে সম্মানী ও অন্যান্য ভাতা দেওয়া হয়। অক্টোবর-নভেম্বর মাসে সম্মানী ও অন্যান্য ভাতা ৫০ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়। অন্য কাউন্সিলরদের অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে সম্মানী ও অন্যান্য ভাতা ৫০ হাজার টাকা করে দেয় সিটি করপোরেশন। কিন্তু নোটিশদাতা সাতজনসহ ৯ কাউন্সিলরকে অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে ৪৩ হাজার ৫০০ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। সম্মানী কম পাওয়া বাকি দুই কাউন্সিলর হলেন ১২ নম্বর ওয়ার্ডের জাকির হোসেন ভুলু ও ২২ নম্বর ওয়ার্ডের আনিছুর রহমান দুলাল।

নোটিশে বলা হয়, একই পরিষদে কাউন্সিলরদের সঙ্গে দ্বিমুখী আচরণ আইনগত গ্রহণযোগ্য নয়। এ ছাড়া মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া হোল্ডিং ট্যাক্স ১০০০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে, যাতে নোটিশদাতারা জনগণের সামনে প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছেন।

সরকারি আদেশ-নির্দেশ অনুযায়ী বরিশাল সিটি করপোরেশন পরিচালনার নিয়ম থাকলেও তা নোটিশগ্রহীতারা খামখেয়ালিভাবে চালাচ্ছেন। এতে করপোরেশনে স্থবিরতা ও জন-অসন্তোষ বাড়ছে। হাটবাজার টেন্ডার-প্রক্রিয়ায় না দিয়ে নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের ইজারা দেওয়া হয়েছে বেআইনিভাবে। ইজারাদারদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ জনসাধারণ। যে কারণে নোটিশদাতাদের সর্বত্র জবাবদিহি করতে হচ্ছে।

আইনজীবী আজাদ রহমান বলেন, নোটিশগ্রহীতাদের নোটিশ গ্রহণের ১৫ দিনের মধ্যে লিখিত জবাব দেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। জবাব না পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নোটিশের অনুলিপি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সিনিয়র সচিব, বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার, বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিচালক, বরিশাল জেলা প্রশাসক, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের উপপরিচালক, জনতা ব্যাংক লিমিটেড বরিশাল করপোরেট শাখার ব্যবস্থাপক ও জনতা ব্যাংক লিমিটেড বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপকের কাছে পাঠানো হয়েছে।

কাউন্সিলর জিয়াউর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিধি অনুযায়ী আমরা সাতজন কাউন্সিলর বিল-ভাউচার জমা দিয়েছি। কিন্তু আমাদেরকে প্রতিমন্ত্রীর কাছের লোক বলে মেয়র বিল-ভাউচার পাস না করার নির্দেশ দিয়েছেন। তাই আমরা বিষয়টি আইনগতভাবে মোকাবেলার জন্য আদালতে যেতে বাধ্য হচ্ছি।’

বিসিসিতে ৩০ জন সাধারণ ও ১০ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক কাউন্সিলর জানান, দায়িত্ব গ্রহণের পর কমপক্ষে ২৫ কাউন্সিলরের সঙ্গে মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর সম্পর্কের অবনতি ঘটে। বেশ কয়েকজন কাউন্সিলরের সঙ্গে মেয়রের মুখ দেখাদেখিও বন্ধ।

কাউন্সিলরদের অভিযোগ, মেয়র একক সিদ্ধান্তে পরিষদ পরিচালনা করেন। আগামী নির্বাচন ঘনিয়ে এলেও এখন পর্যন্ত ১৪টি স্থায়ী কমিটি গঠন করেননি তিনি। এমনকি বিভিন্ন ওয়ার্ডে কাউন্সিলরদের অকার্যকর রেখে মেয়র নিজের অনুগত ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতাকে সব ধরনের ক্ষমতা দিয়েছেন। এ নিয়ে মেয়র ও কাউন্সিলরদের মধ্যে দ্বন্দ্ব আগে থেকে থাকলেও প্রকাশ হয় গত আগস্টের শুরুতে।

সে সময় প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুকের দেওয়া ত্রাণ বিতরণ করেছিলেন ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আমির হোসেন, ২০ নম্বর ওয়ার্ডের জিয়াউর রহমান বিপ্লব, ২২ নম্বর ওয়ার্ডের আনিছুর রহমান দুলাল, ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাহাউদ্দিন বাহার, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের আনিছুর রহমান শরীফ ও ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের হুমায়ন কবির। এর পরপরই এই কাউন্সিলরদের কার্যালয় থেকে সচিব ও অফিস সহায়ক প্রত্যাহার করে নগর ভবনে সংযুক্ত করা হয়। যদিও পরে কার্যালয়গুলোতে নতুন লোক দেওয়া হয়। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ ছয় কাউন্সিলর প্রকাশ্যে প্রতিমন্ত্রীর পক্ষে অবস্থান নেন এবং বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন।

কাউন্সিলর বাহাউদ্দিন বাহার বলেন, গত ৮ আগস্ট প্রতিমন্ত্রীর ত্রাণ বিতরণ করার পর কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রত্যাহার করা হয়। তিন দিন পর যাঁদের নিয়োগ দেওয়া হয় তাঁরা কেউ আগে সচিব পদে ছিলেন না। তাঁরা কাউন্সিলরদের কার্যালয় অচল করে ফেলেছেন। কাউন্সিলর অফিসের তথ্য নেওয়ার জন্য তাঁদের পদায়ন করা হয়েছে মেয়রের এজেন্ট হিসেবে।

কাউন্সিলর জিয়াউর রহমান বলেন, মেয়র বেশির ভাগ মাসিক সভা করেন তাঁর বাসায়। ওই সভায় বহিরাগতরাও উপস্থিত থাকেন। এমনও হয়েছে, কাউন্সিলররা নিচতলায় খোলা জায়গায় দাঁড়িয়ে ছিলেন, আর মেয়র তিনতলার বারান্দায় দাঁড়িয়ে সভা করেছেন। বিগত সভার কোনো রেগুলেশনও পাঠ করা হয়নি। এসব কারণে বেশির ভাগ কাউন্সিলর আপাতত মেয়রের বাসায় যাচ্ছেন না।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর মুঠোফোনে কল দিলেও তিনি ধরেননি। তবে প্যানেল মেয়র রফিকুল ইসলাম খোকন কালের কণ্ঠকে বলেন, সাধারণ পরিষদের সভায় কাউন্সিলরদের সম্মানী বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত হয়েছে। সে অনুযায়ী প্রত্যেক কাউন্সিলর নতুন হারে সম্মানী ভাতা পাওয়ার কথা। তবে ৯ জন কাউন্সিলর সেই নতুন ভাতা পাননি। কেন তাঁরা ভাতা পাননি, সেটা কর্তৃপক্ষ বলতে পারবে।

অভিযোগের বিষয়ে বরিশাল সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ ফারুক হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, কাউন্সিলরদের সরকারি অংশের বেতন-ভাতা বৃদ্ধি করা হয়নি। অক্টোবর মাসে পরিষদের সভায় কাউন্সিলদের মাঠ পর্যায়ের কাজে নানা খরচের কথা বিবেচনা করে সরকারি ভাতার বাইরে সিটি করপোরেশনের নিজস্ব তহবিল থেকে অতিরিক্ত টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়, যা বিল-ভাউচারের মাধ্যমে বেতন-ভাতার সঙ্গে পরিশোধ করা হয়। কিন্তু ওই সাত কাউন্সিলর অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে ছয় হাজার ৫০০ টাকার বিল-ভাউচার না করায় ওই টাকা দেওয়া হয়নি। যে কাউন্সিলররা অতিরিক্ত ছয় হাজার ৫০০ টার বিল-ভাউচার জমা দিয়েছেন, তাঁদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে ৫০ হাজার করে বেতন-ভাতার অর্থ জমা দেওয়া হয়েছে।

করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, ‘নোটিশের বিষয়টি আমি শুনেছি। নোটিশ হাতে পেলে বলতে পারব আসলে কী বিষয়ে নোটিশ করা হয়েছে। এরপর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

উপরে