প্রকাশিত : ১১ নভেম্বর, ২০২২ ১৪:৩১

ফরিদপুরে পরিবহন ধর্মঘট শুরু

অনলাইন ডেস্ক
ফরিদপুরে পরিবহন ধর্মঘট শুরু

আগামী ১২ নভেম্বর ফরিদপুরে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ। এর আগেই মহাসড়কে থ্রি হুইলার বন্ধের দাবিতে আজ শুক্রবার (১১ নভেম্বর) সকাল ৬টা থেকে শনিবার (১২ নভেম্বর) রাত ৮টা পর্যন্ত ৩৮ ঘণ্টার পরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়েছে ফরিদপুরে।

জেলা পরিবহন মালিক ও শ্রমিক ঐক্য পরিষদ এই ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে।

জেলা পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক গোলাম নাসির স্বাক্ষরিত চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের ২০২০ সালের ২৯ মে'র সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সড়কে নিরাপত্তা নিশ্চিতে ২২টি জাতীয় মহাসড়কে সব প্রকার অবৈধ যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। এ নিয়ে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও সহাসড়কে অবাধে অবৈধ যান চলাচল করছে। দিন দিন তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর ঢাকাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে দক্ষিণবঙ্গের আঞ্চলিক ও দূরপাল্লায় পরিবহন চলাচল বৃদ্ধি পেয়েছে। মহাসড়কে অবৈধ যান চলাচলের কারণে প্রতিনিয়ত নানা প্রকার অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা ঘটছে। এ অবস্থায় যাত্রীসাধারণের নিরাপদ যাতায়তের জন্য আগামী ১০ নভেম্বরের মধ্যে গৃহীত সিদ্ধান্ত আপনার মাধ্যমে বাস্তবায়নে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

চিঠিতে বলা হয়, অন্যথায় আগামী ১১ নভেম্বর সকাল ৬টা থেকে ১২ নভেম্বর রাত ৮টা পর্যন্ত ফরিদপুর জেলা বাস টার্মিনাল থেকে আঞ্চলিক বাস ও মিনিবাসসহ দূরপাল্লার পরিবহনের সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ রাখা হবে।

ফরিদপুর মাহেন্দ্র শ্রমিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাকিম বলেন, আমারা মহাসড়কের সব অংশে মাহেন্দ্র চালাই না। ফিডার রোডে ঢোকার জন্য যতটুকু ব্যবহার করতে হয়, ততটুকু করি।

এবিষয়ে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এবং গণসমাবেশের সমন্বয়কারী শামা ওবায়েদ বলেন, পরিবহন ধর্মঘট সরাসরি কিংবা পরোক্ষভাবে ডাকুক, গত পাঁচটি সমাবেশে আমাদের অভিজ্ঞতা হচ্ছে আমাদের সমাবেশের আগে ও সমাবেশের দিন তারা বাস বন্ধ করে দেবে। সব জায়গায় তা করেছে। জনগণের ভোগান্তি তাদের মাথায় নেই। তাদের চিন্তা বিএনপিকে বিপাকে ফেলা। কিন্তু এতে কোন কাজ হবে না। মানুষের আবেগ আটকে রাখা যায় না।

তিনি বলেন, সরকারের পায়ের নিচের মাটি সরে যাচ্ছে। ওরা বাস চলতে দেবে না জেনেই আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। ট্রলারে চড়ে, ভেলায় চড়ে, এমসনকি পায়ে হেটে সমাবেশে আসবে।

উপরে