প্রকাশিত : ৫ নভেম্বর, ২০২৩ ১২:০৪

যানজটের নগরীতে মেট্রোরেলে যাত্রা স্বপ্নের মতন

অনলাইন ডেস্ক
যানজটের নগরীতে মেট্রোরেলে যাত্রা স্বপ্নের মতন

যানজটের নগরী রাজধানী ঢাকা। যে নগরীতে যানজটের তীব্রতা এতোই যে সামান্য দূরত্ব পা‌ড়ি দিতে পার হয়ে যায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা। তবে এই যানজটের শহরে দীর্ঘ ২০ কিলে‌মিটারের বে‌শি দূরত্ব উত্তরা থেকে ম‌তি‌ঝিল মাত্র ৩০ মিনিটের কিছু বে‌শি সময়ে পাড়ি দিতে পেরে অনেকটায় স্বপ্নের মতন বলে জানান মেট্রোরেলে চলাচলকারী সাধারণ মানুষ।

রোববার সকালে রাজধানীর ম‌তি‌ঝিল মেট্রো স্টেশন ঘুরে যাত্রীদের মধ্যে উচ্ছ্বসিত এমন চিত্র দেখা গেছে। এতো অল্প সময়ে এই দীর্ঘপথ পা‌ড়ি দেওয়া স্বপ্নের মতো লাগছে বলে জানান তারা।

চাক‌রির সুবাদে কাজীপাড়া স্টেশন থে‌কে মেট্রোতে চেপে ম‌তি‌ঝিল এসেছেন আনোয়ার হোসেন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল বার্তা২৪.কমের সঙ্গে কথা হয় ম‌তি‌ঝিল মেট্রো স্টেশনের ভেত‌রে। আন‌ন্দিত ও উচ্ছ্বসিত ভাব প্রকাশ করে তি‌নি বলেন, ভাই এতো অল্প সময়ে ম‌তি‌ঝিলে চলে আসবো কখনও ভা‌বিনি। যানজটের এই শহরে মেট্রোরেলে এই যাত্রা আসলেই স্বপ্নের মতন।

তি‌নি বলেন, আমার অ‌ফিস ম‌তি‌ঝি‌লে। আগে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেল চলাচলের কারণে এই সু‌বিধাটা পাই‌নি। আগে রাস্তায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটে বসে অ‌ফিসে আসার যে দুর্ভোগ সেটার অবসান হ‌লো।

উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে ম‌তি‌ঝিলে এসেছেন মাহবুবুর রহমান। ব্যাংক পাড়ায় চাক‌রি করেন তি‌নি। মাহবুব বার্তা২৪.কমকে বলেন, সাধারণত অ‌ফি‌সের গা‌ড়িতে আ‌মি চলাচল ক‌রি। কিন্তু আজকে অবরোধের কারণে গা‌ড়ি বের ক‌রেনি। তাই ভাবলাম আজ মেট্রো‌তেই অ‌ফিসে আসবো। কিন্তু মেট্রো‌রেলে চেপে এতোটা সু‌বিধার সঙ্গে অল্প সময়ে চলে আস‌বো এটা বিশ্বাস ক‌রতে কষ্ট হ‌চ্ছে। কারণ এই শহরে সরকা‌রি বন্ধের দিনও নিজের গা‌ড়ি নিয়ে এতো কম সময়ে এতোদূর আসা সম্ভব না।

আগারগাঁও থে‌কে ম‌তি‌ঝি‌লে এ‌সে‌ছেন শিকদার রা‌ব্বি। তি‌নি ব‌লেন, একটা কা‌জে ম‌তি‌ঝি‌লে এ‌সে‌ছি। অব‌রো‌ধে গা‌ড়িও ঠিকঠাক চল‌ছে না। আর যেগু‌লো চল‌ছে সেগু‌লো‌তেও মানুষের ভিড়। তাছাড়া অব‌রো‌ধে পাব‌লিক প‌রিবহ‌নে চলাচল করা রিস্কও আ‌ছে। সবকিছু ভে‌বেই মে‌ট্রো‌রে‌লে উ‌ঠে‌ছি। কোন ঝা‌মেলা ছাড়াই অ‌নেক সহজে সুন্দরভা‌বে চ‌লে এ‌সে‌ছি।

‌স্টেশনে দ্বা‌য়িত্বরত এক কর্মকর্তা বার্তা২৪‌.কমকে বলেন, অবরো‌ধের মধ্যেই যে প‌রিমাণ যাত্রীর চাপ অবরোধ শে‌ষে যাত্রী‌র চাপ আরও অনেক বেড়ে যাবে।

২০২২ সালের ২৮ ডিসেম্বর উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেলের প্রথম ধাপ উদ্বোধন করা হয়। শনিবার (৪ নভেম্বর) দ্বিতীয় ধাপে চালু হয় আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের মেট্রোরেল। অর্থাৎ উত্তরা-মতিঝিল পুরো অংশেই এখন মেট্রোরেল চলবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মেট্রোরেল চালুর মধ্য দিয়ে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার দূরত্বের পথ মাত্র ৩৮ মিনিটে পার হতে পারবেন যাত্রীরা। এলিভেটেড লাইন হওয়ায় রাজধানীর চিরচেনা যানজটে পড়তে হবে না যাত্রীদের। উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত পুরো পথের জন্য ভাড়া গুণতে হবে ১০০ টাকা। অবশ্য শুরুতে আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের সবগুলো স্টেশনে মেট্রোরেল থামবে না। চলবে সকাল থেকে রাত অবধি।

জানা গেছে, এমআরটি লাইন-৬ প্রকল্পটি ৩৩ হাজার ৪৭২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে ১৯ হাজার ৭১৮ কোটি টাকা ঋণ সহায়তা দিচ্ছে জাইকা। বাকি ১৩ হাজার ৭৫৩ কোটি ৫২ লাখ টাকা বহন করছে বাংলাদেশ সরকার। মেট্রোরেল নির্মাণ প্রকল্পটি ২০১২ সালের ১৮ ডিসেম্বর একনেকে অনুমোদন দেওয়া হয়। ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে জাইকার সঙ্গে চুক্তি সই হয়। প্রথমে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ এমআরটি লাইন-৬ নির্মাণের কথা ছিল। যাত্রীদের সুবিধা বিবেচনায় সেটি কমলাপুর পর্যন্ত সম্প্রসারণ করতে অনুশাসন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত দূরত্ব এক দশমিক ৬ কিলোমিটার। বর্তমানে বর্ধিত অংশের অর্থাৎ মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত মেট্রোরেল সম্প্রসারণের কাজ চলছে। যদিও নির্মাণকাজের শুরুতে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছিল ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। গত ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত অংশের বাস্তব কাজ শেষ হয়েছে ৯৮ দশমিক ০৮ শতাংশ।

উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ১৬টি স্টেশন রয়েছে। নির্মাণ ও আনুষঙ্গিক কিছু কাজ বাকি থাকায় প্রথম পর্যায়ে আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত সকালে সাড়ে ৭টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত চার ঘণ্টা চলবে। মতিঝিল থেকে আগারগাঁও অংশে শুধু মতিঝিল, বাংলাদেশ সচিবালয় (প্রেসক্লাব) ও ফার্মগেট— এই তিনটি স্টেশনে থামবে মেট্রোরেল। প্রতি ১০ মিনিট পরপর ট্রেন ছাড়বে। পুরোপুরি নির্মাণ কাজ শেষ না হাওয়ায় এই মুহূর্তে বিজয় সরণি, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় স্টেশনে মেট্রোরেল থামবে না। তবে আগারগাঁও থেকে উত্তরা পর্যন্ত আগের মতোই রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চলবে।

উপরে