প্রকাশিত : ১৩ নভেম্বর, ২০২৩ ১৪:১৯

অর্ধশতাব্দীতে প্রথমবার চট্টগ্রামে রুশ নৌবহর

অনলাইন ডেস্ক
অর্ধশতাব্দীতে প্রথমবার চট্টগ্রামে রুশ নৌবহর

হঠাৎ চট্টগ্রাম বন্দরে ভিড়েছে রাশিয়ার নৌবাহিনীর বহর। এর ফলে অর্ধশতাব্দীর মধ্যে প্রথমবার রাশিয়ার কোনো নৌবহর বন্দরে ভিড়ল।

রোববার ঢাকার রুশ দূতাবাস তাদের ফেসবুক পেজে ছবি পোস্ট করে লিখেছে, রাশিয়ান প্যাসিফিক ফ্লিট স্কোয়াড্রন চট্টগ্রাম বন্দর ভ্রমণ করছে, যা রাশিয়া-বাংলাদেশ সম্পর্কের একটি মাইলফলক। ৫০ বছর আগে শেষবার রাশিয়ান/সোভিয়েত নৌবাহিনীর জাহাজ বাংলাদেশি বন্দর ভ্রমণ করেছিল।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা তাস জানায়, প্যাসিফিক ফ্লিট স্কোয়াড্রন নামে ওই নৌবহরে অ্যাডমিরাল ট্রাইবাটস ও অ্যাডমিরাল প্যান্টেলেভ নামে দুটি সাবমেরিন বিধ্বংসী যুদ্ধজাহাজ রয়েছে। আরও রয়েছে পেচেঙ্গা নামে একটি ট্যাঙ্কার।

বাংলাদেশে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেক্সান্ডার মন্টিটস্কি তাসকে বলেন, ৫০ আগে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম নৌবন্দর থেকে মাইন অপসারণে অভিযান পরিচালনার জন্য একটি রুশ নৌবহর মোতায়েন করা হয়েছিল।

‘সেই সময় রুশ নৌবহর এসেছিল মূলত সদ্য স্বাধীন হওয়া একটি দেশকে মানবিক বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা করতে। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বন্দরে অনেক মাইন বসানো হয়েছিল। এ কারণে অনেক জাহাজ ডুবে গিয়েছিল।’

রুশ রাষ্ট্রদূত জানান, সেই সময় এই মাইন সমস্যা সমাধানে সহায়তার জন্য বাংলাদেশ সরকার অনেক দেশের কাছেই আবেদন জানিয়েছিল। কিছু দেশ সেই আবেদনে সাড়া দিয়েছিল। কিন্তু বিনিময়ে অনেক অর্থ দাবি করেছিল তারা, যা বাংলাদেশের ছিল না।

তিনি বলেন, তখন সোভিয়েত ইউনিয়ন (বর্তমান রাশিয়া) একমাত্র দেশ হিসেবে মানবিক কারণে সহায়তা দিতে সম্মত হয়েছিল। এরপর সমস্যা সমাধানে মাইন ক্লিয়ারিং অপারেশন নামে একটি অভিযান চালানো হয়, যা ১৯৭২ সালের এপ্রিলে শুরু হয়ে ১৯৭৪ সালের জুন পর্যন্ত চলে।

রাষ্ট্রদূত জানান, সোভিয়েত নৌবাহিনীর আট শতাধিক নাবিক ২৬ মাস ধরে অক্লান্ত পরিশ্রম করে চট্টগ্রাম বন্দরের মাইন অপসারণ করে। সেই অভিযানে এক রুশ নৌ ডুবুরি মারা যান। তবে শেষ পর্যন্ত সোভিয়েত নৌসেনারা তাদের লক্ষ্য অর্জন করে এবং চট্টগ্রাম বন্দরে সারা বিশ্ব থেকে জাহাজ আসা-যাওয়ার পথ সুগম হয়।

তবে এবার রুশ নৌবহরের আগমনের লক্ষ্য একেবারেই আলাদা। চট্টগ্রামে রাশিয়ার অনারারি কনসাল আশিক ইমরান বলেন, রুশ নাবিকরা আবারও চট্টগ্রাম বন্দরে এসেছেন। তবে এবার শুধু প্রীতি সফরে।

তিনি বলেন, এটি প্রমাণ করে যে দুই রাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ক বর্তমানে খুব উচ্চ পর্যায়ে রয়েছে।

উপরে