প্রকাশিত : ১৪ এপ্রিল, ২০২৪ ১৩:৩৬

দেশজুড়ে নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে বাংলা নববর্ষ

অনলাইন ডেস্ক
দেশজুড়ে নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে বাংলা নববর্ষ

আজ পহেলা বৈশাখ। বাংলা বর্ষপঞ্জিতে যুক্ত হয়েছে নতুন আরেকটি বাংলা বর্ষ ‘১৪৩১’। অতীতের ভুলত্রুটি ও ব্যর্থতার গ্লানি ভুলে নতুন করে সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায় আজ রোববার (১৪ এপ্রিল) বর্ণিল উৎসবে মেতেছে দেশের ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ।

নতুন একটি বছর মানেই নতুন কিছুর সম্ভাবনা। নতুন বছরে, নতুন দিনে প্রত্যয় থাকবে সব প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে প্রগতির পথে দৃপ্ত পদক্ষেপে এগিয়ে যাওয়ার।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারা নিজ নিজ বাণীতে দেশবাসীকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে দেশের শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেছেন।

বৈশাখ শুধু উৎসবের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয় উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন তার বাণীতে বলেন, এর সঙ্গে আমাদের আত্মবিকাশ ও বেড়ে উঠার প্রেরণা জড়িয়ে আছে। বাঙালি সংস্কৃতির বিকাশ, আত্মনিয়ন্ত্রণ ও মুক্তি সাধনায় এটি এক অবিনাশী শক্তি।

অন্যদিকে নববর্ষ উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাঙালির চিরায়ত ঐতিহ্যে পহেলা বৈশাখ বিশেষ স্থান দখল করে আছে। এটি জঙ্গিবাদ, মৌলবাদ, উগ্রবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে। নববর্ষের এই উদ্যাপন আমাদের শিকড়ের সন্ধান দেয়, আবার এর মধ্য দিয়েই খুঁজে পাওয়া যায় জাতিসত্তার পরিচয়।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের সর্বত্র আজ সকাল থেকেই পথে-প্রান্তরে নেমেছে মানুষের ঢল।

আজ রমনার বটমূলে দিনের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে ছায়ানটের নতুন বছর আবাহনের শুরু হয়। এবারের অনুষ্ঠানের মূলভাব ছিল মানুষ ও মানবতার জয়গান। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিল্পী ও শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা’ অনুষ্ঠিত হয়। ‘আমরা তো তিমির বিনাশী’-এই প্রতিপাদ্যে সকাল নয়টায় চারুকলা অনুষদের সামনে থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়। পরে শাহবাগ মোড় ঘুরে রমনা টেনিস কমপ্লেক্সের সামনে দিয়ে শিশুপার্কের মোড় ঘুরে টিএসসি চত্বর ঘুরে চারুকলা অনুষদের সামনে এসে এ শোভাযাত্রা শেষ হয়।

এছাড়া প্রতিবছরের মতো শেরেবাংলা নগরের বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের সামনে বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনের প্রভাতে হাজার শিল্পীর অংশগ্রহণে রয়েছে সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন। বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার পরিচালিত ‘হাজার কণ্ঠে বর্ষবরণ’ শিরোনামের এই অনুষ্ঠানে হাজারো শিল্পী অংশ নিচ্ছেন। আর ‘মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা’ প্রতিপাদ্য নিয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আয়োজনে নববর্ষের অনুষ্ঠান পালিত হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। দলীয় ও একক সংগীত, কবিতা, নৃত্য, পাঠ, পথনাটক ইত্যাদি আয়োজন দিয়ে সাজানো হয়েছে তাদের এবারের নববর্ষের অনুষ্ঠান।

এসব আয়োজন ছাড়াও আজ সারাদিনই রাজধানীতে বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও সংস্থার আয়োজনে বর্ষবরণের অনুষ্ঠান হবে। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন চ্যানেলে দিবসটি ঘিরে নানা আয়োজন থাকলেও ঈদের ছুটি থাকায় পত্রিকাগুলোতে এবার ক্রোড়পত্র প্রকাশের সুযোগ নেই।

বাংলা নববর্ষে সকল কারাগার, হাসপাতাল ও শিশু পরিবারে (এতিমখানা) উন্নতমানের ঐতিহ্যবাহী বাঙালি খাবারের আয়োজন করা হবে।

অন্যান্যবারের মতো এবারের পহেলা বৈশাখও সরকারি ছুটির দিন। তবে ঈদের ছুটির সঙ্গে একই সঙ্গে পড়ায় এ ছুটিতে কিছুটা ভিন্নতা এসেছে। কারণ অনেকে এই ছুটিতে বাড়িতে অবস্থান করছেন। ফলে এই আনন্দ এবার গ্রামে-গঞ্জেও ছড়িয়ে পড়ছে।

উপরে